ঢাকা || বৃহস্পতিবার , ১৮ই জানুয়ারি, ২০১৮ ইং || ৫ই মাঘ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ || ১লা জমাদিউল-আউয়াল, ১৪৩৯ হিজরী

বুদ্ধিজীবী নিধনযজ্ঞে প্রাণ গেছে ৪২ আইনজীবীর

জাতিকে মেধাশূন্য করতে একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের পুরো নয় মাস পাকিস্তানিরা সচেষ্ট ছিল আমাদের বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করতে। যুদ্ধ যত শেষের দিকে গড়িয়েছে, হত্যার মাত্রাও তত বেড়েছে। শুধু ঢাকা নয়, পিশাচরা হত্যাকাণ্ড চালিয়েছে দেশজুড়ে। মাত্র তিনশ’ শহীদ বুদ্ধিজীবীর কথা আমরা জানতে পেরেছি কিন্তু বাকি শহীদ বুদ্ধিজীবীরা? পাদপ্রদীপের আলোয় উন্মোচন করতে হবে সেই সব অজানা অধ্যায়। আর এই দায়িত্ব নিতে হবে তরুণ প্রজন্মকেই।

২৫ মার্চ রাতে ঢাকায় নিরীহ জনগণের ওপর পাকবাহিনীর আক্রমণের সময় থেকেই শুরু হয় বুদ্ধিজীবী নিধনযজ্ঞ। পাকিস্তানি সেনারা তাদের অপারেশন সার্চলাইট কর্মসূচির আওতায় চিহ্নিত বুদ্ধিজীবীদের খুঁজে বের করে হত্যা করে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষককে ২৫ মার্চ রাতেই হত্যা করা হয়। তবে বুদ্ধিজীবীদের পরিকল্পিত হত্যাযজ্ঞ ১৬ ডিসেম্বর পাকবাহিনীর আত্মসমর্পণের তিন-চার দিন আগে বিশেষত ঢাকায় ভয়াবহ রূপ নেয়। ১৪ ডিসেম্বর রাতে ঢাকায় দুইশরও বেশি বুদ্ধিজীবীকে তাদের বাড়ি থেকে তুলে নেয়া হয়। ঢাকায় এ হত্যাকাণ্ড শুরু হয় এবং ক্রমে ক্রমে তা সারাদেশে, বিশেষত জেলা ও মহকুমা শহরে ছড়িয়ে পড়ে।

শহীদ বুদ্ধিজীবীদের প্রকৃত সংখ্যা এখনো নিরূপণ করা সম্ভব হয়নি। আর তাদের নাম-পরিচয় পাওয়া আরও দূরুহ বিষয়। তবে বাংলাপিডিয়ার প্রাপ্ত তথ্যসূত্র থেকে এক হাজার ১১১জন শহীদের একটি সংখ্যা জানা গেছে। এর মধ্যে ছিলেন ৯৯১ জন শিক্ষাবিদ, ১৩ জন সাংবাদিক, ৪৯ জন চিকিৎসক, ৪২ জন আইনজীবী, ৯ জন সাহিত্যিক ও শিল্পী, ৫ জন প্রকৌশলী এবং অন্যান্য ২ জন।

তথ্য বলছে ৪২ জন আইনজীবীর মধ্যে ঢাকায় ৬ জন, ফরিদপুরে ২ জন, চট্টগ্রামে একজন, পার্বত্য চট্টগ্রামে একজন, সিলেটে ৫ জন, নোয়াখালীতে ২ জন, খুলনায় দুইজন, যশোরে ৪ জন, রাজশাহীতে ৫ জন, রংপুরে চারজন, দিনাজপুরে ২জন, বগুড়ায় দুইজন, পটুয়াখালীতে চারজন এবং পাবনায় দু’জনকে হত্যা করেছিল পাকিস্তানি বাহিনী ও তাদের দোসর জামায়াতের নেতৃত্বাধীন সহযোগীরা।

তবে মহাপরিতাপের বিষয় হচ্ছে এই ৪২ জন আইনজীবীর মধ্যে মাত্র একজনের নাম জানা গেছে। আইনজীবী নজমুল হক সরকার ব্যতীত আর কারো নামও খুঁজে পাওয়া যায়নি উইকিপিডিয়ায়।

বুদ্ধিজীবী নিধন চূড়ান্ত রূপ পায় একাত্তরের ১৪ ডিসেম্বর, বিজয় যখন দুয়ারে দাঁড়ানো। স্বাধীনতার পর লাখো শহীদের মৃতদেহ পাওয়া গেলেও নিখোঁজ রয়েছেন অনেক বুদ্ধিজীবী। যাদের পাওয়া যাবে না জেনেও ৪৭ বছর ধরে খুঁজে ফিরছেন স্বজনরা। হারানো ওই বুদ্ধিজীবীদের বেশিরভাগেরই রাষ্ট্রীয় কোনো স্বীকৃতি নেই। স্মৃতি সংরক্ষণের জন্য নেওয়া হয়নি সরকারি কোনো উদ্যোগও।

শহীদ সন্তানদের মতো আমরাও যখন বয়ে চলি বিস্মৃত বেদনার রেখা, তখনও সরকার নিশ্চুপ। সরকারের পক্ষ থেকে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের স্মৃতিরক্ষায় নেওয়া হয় না বিশেষ কোনো উদ্যোগ। ২০১৪ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি জাতীয় সংসদে এক প্রশ্নোত্তরে ওই বছরের ৩০ জুনের মধ্যে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের তালিকা প্রকাশের ঘোষণাও দিয়েছিলেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। এর পরও শহীদ বুদ্ধিজীবীদের কোনো তালিকা এখনও প্রণয়ন করতে পারেনি মন্ত্রণালয়। ফলে মুক্তিযুদ্ধে অবদান রাখা শহীদ বুদ্ধিজীবীদের স্মরণ বর্তমানে শুধু দিবস পালনের মধ্যেই সীমাবদ্ধ রয়েছে।

ল’ইয়ার্স ক্লাব বাংলাদেশ ডটকম ডেস্ক