‘সাজানো’ ভ্রাম্যমাণ আদালত, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটসহ চারজনকে তলব

প্রতিবেদক : বার্তা কক্ষ
প্রকাশিত: ১৪ জানুয়ারি, ২০১৮ ৩:৪৪ অপরাহ্ণ
বাংলাদেশের সর্বোচ্চ আদালত

ফৌজদারি মামলায় পুলিশ হেফাজতে থাকা ব্যক্তিকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে সাজা দেওয়ার অভিযোগ বিষয়ে ব্যাখ্যা জানাতে নির্বাহী হাকিমসহ চারজনকে তলব করেছেন হাইকোর্ট। চারজন হলেন, চট্টগ্রামের লোহাগাড়ার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট (ইউএনও) মাহবুব আলম, ওসি মো. শাহজাহান, এসআই হেলাল খান ও ওয়াসিম। ২৮ জানুয়ারি সংশ্লিষ্টদের হাইকোর্টে হাজির হতে হবে।

এক রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে আজ রোববার (১৪ জানুয়ারি) বিচারপতি সৈয়দ মো. দস্তগীর হোসেন ও বিচারপতি মো. আতাউর রহমান খানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ রুলসহ এ আদেশ দেন।

সাজানো ভ্রাম্যমাণ আদালতে সাজা দেওয়া হয়েছে—এমন দাবি করে এর বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে ও ক্ষতিপূরণ চেয়ে মোহাম্মদ বেলাল উদ্দীন ওই রিটটি করেন। এই বেলালকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে সাজা দেওয়া হয়েছিল।

আদালতে আবেদনকারীর পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট মনজিল মোরসেদ।

জানা গেছে, গত ১৩ অক্টোবর রাত নয়টায় বেলালকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরদিন একটি ফৌজদারি মামলায় তাঁকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হয়। পুলিশের এক জব্দ তালিকায় দেখা যায় ১৩ অক্টোবর রাত নয়টায় তাঁর কাছ থেকে দুই পুরিয়া গাঁজা উদ্ধার করা হয়েছে। এরপর ইউএনও পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালত ১৪ অক্টোবর দুপুর ১২টা ১০ মিনিটে দুই পুরিয়া গাঁজা উদ্ধারের ঘটনায় বেলালকে আট মাসের জেল দেন।

পরে সাজানো ভ্রাম্যমাণ আদালতে সাজা দেওয়ায় এর বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট করেন ভুক্তভুগি বেলাল।

রিটের শুনানি নিয়ে আদালত রুল জারি করেন। রুলে হাইকোর্ট ভ্রাম্যমাণ আদালতের সাজা সাজানো বলে কেন বাতিল ঘোষণা করা হবে না এবং যাঁরা ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেছেন, তাঁদের বিরুদ্ধে আইনগত পদক্ষেপ নিতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, তা জানতে চেয়েছেন।

একইসঙ্গে রিট আবেদনকারীকে ২০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ কেন দেওয়া হবে না, তাও জানতে চাওয়া হয়েছে স্বরাষ্ট্রসচিব, লোহাগাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, ওই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাসহ পাঁচ বিবাদীর কাছে। ওই পাঁচজনকে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

সুপ্রিমকোর্ট প্রতিনিধি/ল’ইয়ার্স ক্লাব বাংলাদেশ ডটকম