ঢাকা , ১৮ই আগস্ট ২০১৮ ইং , ৩রা ভাদ্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
প্রচ্ছদ » নারী ও শিশু » বাপ-ছেলে মিলে যৌন নির্যাতন

বাপ-ছেলে মিলে যৌন নির্যাতন

 

বাবার পর ছেলে। ছেলের পর ফের বাবা। পালাক্রমে নির্যাতন। নিষ্ঠুর পাশবিকতা! একই বাড়িতে বাপ-ছেলে মিলে যৌন নির্যাতন। অতঃপর ছাদ থেকে লাফ দিয়ে আত্মরক্ষার চেষ্টা। এখন জীবন-মরণের সন্ধিক্ষণে হাসপাতালের বেডে শুয়ে দিন পার করছেন সৌদি প্রবাসী বাংলাদেশের নারী শ্রমিক তানিয়া।

জানা গেছে, গত ১৭ এপ্রিল সৌদি আরব যান তানিয়া। অভাবের সংসারে আলো জ্বালাতে দেশ ছেড়ে প্রবাসে গেলেও সে আলো আর জ্বালানো হয়নি। এখন প্রায় নিভু নিভু জীবন প্রদীপও।

সূত্র জানায়, এক আদম ব্যবসায়ীর মাধ্যমে সৌদি আরবে যান তানিয়া। রিয়াদে গিয়ে এক স্কুল অধ্যক্ষের দুই শিশু সন্তানকে দেখভাল করার কথা থাকলেও শেষ পর্যন্ত সে চাকরি আর ভাগ্যে জোটেনি। তাকে রাখা হয় এক নির্জন বাড়িতে। সেখানেই নেমে আসে জীবনের অন্ধকার অধ্যায়।

যে বাড়িতে তানিয়াকে গৃহপরিচারিকা হিসেবে রাখা হয় সে বাড়িতে অন্য কোনো নারী ছিলেন না। বাবা আর তিন ছেলের ওই বাড়িতে তানিয়া একাই নারী। যাওয়ার পর থেকেই নির্যাতনের খড়গ নেমে আসে তানিয়ার ওপর। প্রবাস জীবন। ভিনদেশি ভাষা। আপনজনকে না পাওয়া। এমনকি নালিশের জায়গাও না মেলা। এক বর্বর অন্ধকার যুগের অভিজ্ঞতা যেন। বাপ এবং ছেলেরা মিলে পালাক্রমে নির্যাতন। আট দিনের অসভ্য অভিজ্ঞতায় মুক্তির কোনো নিশানা ছিল না এই অসহায় নারীর।

বাপ-ছেলেদের টানা-হেচড়ার সময় একদিন আত্মরক্ষার্থে বাসার ছাদ থেকে লাফ দেন তানিয়া। মুক্তির ঠিকানা পেতে লাফ দিলেও ঠিকানা হয় হাসপাতালে। মারাত্মক আহত অবস্থায় দারোয়ানের সহায়তায় ভর্তি করা হয় কিং খালেদ হসপিটালে।

ওই হাসপাতালের বাংলাদেশি নার্সের মোবাইল ফোন থেকে স্বামী রাসেলকে ফোনে সব ঘটনা খুলে বলেন তানিয়া। এরপর রাসেল আদম ব্যবসায়ী ইকবালের সূত্র ধরে ঘটনার নায়ক ও মূল আদম ব্যবসায়ী এম এইচ ট্রেড ইন্টারন্যাশাল (রিক্রুটিং লাইসেন্স নং-আরএল১১৬৬) এর মালিক মকবুল হোসেনকে খুঁজে বের করেন। তানিয়ার সাথে মকবুল হোসেন ও ইকবালের লোকেরাও কথা বলেন।

কিন্তু ভরসা মেলেনি এখনও। ঘটনার পর থেকেই স্বামী রাসেল সংশ্লিষ্ট রিক্রুটিং এজেন্সির দুয়ারে ধর্না দিচ্ছেন প্রতিনিয়ত। বিভিন্ন দফতরেও ঘুরছেন স্ত্রীকে ফিরিয়ে আনতে। তানিয়ার স্বামী রাসেল গণমাধ্যমকে বলেন, ‘বিচার পরে, আগে আমার স্ত্রীকে দেশে ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থা করেন।’

এ বিষয়ে এম এইচ ট্রেড ইন্টারন্যাশালের মালিক মকবুল হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, মেয়েটি আমার ব্যবসার সর্বনাশ করে দিয়েছে। দূতাবাসের সঙ্গে কথা বলে তাকে আমি দ্রুত দেশে ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থা করতেছি।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, তানিয়া সৌদি আরব যেতে কোনো টাকা না দিলেও সংশ্লিষ্ট রিক্রুটি এজেন্সি মালিক তানিয়াকে পাঠানো বাবদ নিয়োগ কর্তার কাছ থেকে আড়াই লাখ টাকা পেয়েছেন।

সম্প্রতি স্রোতের মতো দেশে আসতে শুরু করেছেন সৌদি আরবে নির্যাতনের শিকার বাংলাদেশি নারীরা। গত দু’দিনে শতাধিক নারী শ্রমিক দেশে ফিরেছেন।

অভিবাসী নারী শ্রমিকদের বিপদে সব ধরনের সহায়তা দিয়ে আসছেন বেসরকারি সংস্থা ব্র্যাক। জানতে চাইলে ব্র্যাকের মাইগ্রেশন প্রোগ্রামের প্রধান শরিফুল হাসান বলেন, অভিবাসী নির্যাতিত শ্রমিকদের আমরা সহায়তা দিয়ে আসছি। গত কয়েক দিনে সৌদি আরব থেকে নির্যাতনের শিকার হয়ে শতাধিক নারী দেশে ফিরে আসে। প্রতিদিনই নির্যাতনের চিত্র স্বজনরা আমাদের জানান। আমরা দূতাবাসের সঙ্গে যোগাযোগ করিয়ে দিচ্ছি।

উল্লেখ্য, জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর (বিএমইটি) তথ্য মতে ২০১৭ সালে অভিবাসী নারীর সংখ্যা ছিল ১২ লাখ ১৯ হাজার ৯২৫ জন। যা মোট অভিবাসন সংখ্যার ১৩ শতাংশ। ১৯৯১ থেকে ২০০৩ সাল পর্যন্ত একা অভিবাসন প্রত্যাশী নারী শ্রমিককে অভিবাসনে বাধা দেয়া হলেও পরবর্তীতে ২০০৩ এবং ২০০৬ সালে কিছুটা শিথিল করা হয়।

২০০৪ সালের পর থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত নারী শ্রমিকের অভিবাসন হার ক্রমাগত বাড়তে থাকে। ২০১৫ সালে এ সংখ্যা দাঁড়ায় মোট অভিবাসনের ১৯ শতাংশে। জাগো নিউজ