ঢাকা , ২১শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং , ৬ই আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
প্রচ্ছদ » আন্তর্জাতিক » কানাডায় ইতিহাস গড়তে চান ব্যারিস্টার তোফাজ্জল হক

কানাডায় ইতিহাস গড়তে চান ব্যারিস্টার তোফাজ্জল হক

টরন্টো সিটির একমাত্র বাংলাদেশি মেয়র প্রার্থী ব্যারিস্টার তোফাজ্জল হকের নির্বাচনী প্রচারের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়েছে। সকলের সহযোগিতায় আসন্ন নির্বাচনে জয়লাভ করে ইতিহাস গড়তে চান তিনি।

টরন্টোর রয়েল কানাডিয়ান লিজিওন হলে বাংলাদেশি কমিউনিটির বিশিষ্টজনদের উপস্থিতিতে ৭ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় নির্বাচনের ইশতেহার তুলে ধরেন মেয়র প্রার্থী তোফাজ্জল হক। এ সময় কমিউনিটির সবাই সম্মিলিতভাবে কাজ করলে ২২ অক্টোবরের নির্বাচনে জয়লাভ করা সম্ভব বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

অনুষ্ঠানে আগত অতিথিদের শুভেচ্ছা জানিয়ে কানাডা এবং বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীতের মধ্য দিয়ে শুরু হয় অনুষ্ঠান। তিন পর্বে ভাগ করা এই অনুষ্ঠানে প্রথম পর্বে সঞ্চালক মেয়র প্রার্থী তোফাজ্জল হকের জীবন বৃত্তান্ত, পড়াশুনা, অভিজ্ঞতা, সম্মাননা ইত্যাদি বিষয়গুলো তুলে ধরেন। দ্বিতীয় পর্বে তোফাজ্জল হক বক্তব্য রাখেন এবং তাঁর বক্তব্যে নির্বাচনী ইশতেহার তুলে ধরেন। শেষ পর্বে ছিল অতিথিদের প্রশ্ন এবং প্রার্থীর উত্তর প্রদান পর্ব।

‘ক্যাম্পেইন কিক অফ’ অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন সিবিএন২৪’ এর প্রধান সম্পাদক মাহবুব ওসমানী।

তোফাজ্জল হক তাঁর বক্তব্যে বলেন, কমিউনিটির সবাই একতাবদ্ধ হলে মেয়র হিসেবে জয় লাভ করা সম্ভব। এক্ষেত্রে তিনি প্রথম বাংলাদেশি এমপিপি ডলি বেগমের কথা উল্লেখ করে বলেন, কমিউনিটির সকলের স্বতঃস্ফুর্ত অংশগ্রহণের মাধ্যমে আজ একজন বাংলাদেশি কানাডার পার্লামেন্টে জায়গা করে নিয়েছেন এবং আমাদের মুখ উজ্জ্বল করছেন। তাই আমিও এমপিপি ডলির মতো ইতিহাস গড়তে চাই। তাই আপনাদের সহযোগিতা চাই।

মেয়র হিসেবে কীভাবে জয়লাভ সম্ভবনা তিনি একটি ‘সিম্পল ম্যাথ’-এর মাধ্যমে ব্যাখ্যা দেন। টরন্টো সিটিতে বাংলাদেশির ভোটারের সংখ্যা প্রায় ৪৫ হাজার। এরা হচ্ছেন বেসিক ভোটার। এই ৪৫ হাজার বাংলাদেশিদের সাহায্য নিয়েই জয়লাভ করা সম্ভব। তোফাজ্জল বলেন, এই বেসিক ভোটাররা সবাই যদি তাঁকে ভোট দেন এবং সেই সাথে তারা প্রত্যেকেই যদি আরো ১০ জন ভোটারকে তাঁকে ভোট দিতে উদ্বুদ্ধ করে ভোট কেন্দ্রে নিয়ে আসতে পারেন তবে তার প্রাপ্ত ভোট হবে ৪ লাখ ৫০ হাজার।

বেসিক ভোটাররা প্রত্যেকে ৮ জন ভোটার সংগ্রহ করতে পারলে তার প্রাপ্ত ভোট হবে ৩ লাখ ৬০ হাজার। ৬ জন ভোটার সংগ্রহ করলে হবে ২ লাখ ৭০ হাজার, ৪ জন হলে ১ লাখ ৮০ হাজার, ২ জন হলে ৯০ হাজার, এবং যদি বেসিক ভোটাররাই শুধুমাত্র তাকে ভোট দেন তাতেও ৪৫ হাজার ভোট পাওয়া সম্ভব। এর আগে যারা মেয়র হিসেবে জয়ী হয়েছেন তারা কেউই সাড়ে চার লাখ ভোট পাননি।