দুর্নীতির দায়ে সাবেক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার ৮ বছরের কারাদণ্ড

প্রতিবেদক : বার্তা কক্ষ
প্রকাশিত: ১৮ অক্টোবর, ২০১৮ ২:৩৪ অপরাহ্ণ
কারাদণ্ড

জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের করা মামলায় খাগড়াছড়ির পানছড়ি উপজেলার সাবেক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মামুনুর রশীদকে ৮ বছর কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। এ ছাড়াও ৩৮ লাখ ৬৮ হাজার ৪৮৮ টাকার সম্পত্তি রাষ্ট্রের অনুকূলে বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার (১৮ অক্টোবর) ঢাকার বিভাগীয় স্পেশাল জজ মিজানুর রহমান খান এ রায় ঘোষণা করেন।

রায় ঘোষণার সময় আসামি মামুনুর রশীদ উপস্থিত না থাকায় তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত।

দুর্নীতি দমন কমিশন আইনের দু’টি ধারায় তাকে দোষী সাব্যস্থ করে ৮ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

দুদকের পিপি মীর আহম্মেদ আলী সালাম ও দুদকের কোর্ট পরিদর্শক আশিকুর রহমান রায়ের বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।

দুর্নীতি দমন আইনের ২০০৪ সালের আইনের ২৬ (২) ধারায় দোষী সাব্যস্ত করে তিন বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও দশ হাজার টাকা অর্থদণ্ড অনাদায়ে ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড এবং ২৭(১) ধারায় দোষী সাব্যস্ত করে ৫ বছরের কারাদণ্ড ও দশ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ১ বছরের কারাদণ্ডের আদেশ দেন আদালত। দুই ধারায় শাস্তি পৃথকভাবে চলবে বলে বিচারক রায়ে উল্লেখ করেন।

২০০৮ সালের ৩ মার্চ দুর্নীতি দমন কমিশন মামুনুর রশিদকে তার নিজের নামে ও পরিবারের নামে থাকা সম্পত্তির হিসাব দাখিলের নির্দেশ দেয়। তিনি নিজের নামে ও পরিবারে নামে ৪১ লাখ ৫৭ হাজার ৬১৩ টাকার সম্পত্তির হিসাব প্রদর্শন করেন। দুদকের অনুসন্ধানে দেখা যায়,সম্পদ বিবরণীতে তিনি ১১ কোটি ৩ লাখ ৯০ হাজার ৬৭৫ টাকার জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জন করেন। এ ঘটনায় ২০০৯ সালের ১৫ এপ্রিল দুদকের সহকারী পরিচালক হেলাল উদ্দিন শরীফ বাদী হয়ে রমনা থানায় একটি মামলা করেন।