ঢাকা জজ কোর্টের লিফট ছিঁড়ে ১২ জন আহত: টনক নড়বে কি সংশ্লিষ্টদের?

প্রতিবেদক : বার্তা কক্ষ
প্রকাশিত: ৯ মার্চ, ২০১৯ ৫:৪১ অপরাহ্ণ
অ্যাডভোকেট আলী আহমদ রোমান

অ্যাডভোকেট আলী আহমদ রোমান:

আইনজীবীরা অন্যের অধিকার আদায়ের জন্য লড়ে থাকেন সবসময়। অথচ তারা তাদের অধিকারের ব্যাপারে ততটা সচেতন নয়!
গত বৃহস্পতিবার (৭ মার্চ) সকালে ঢাকা জেলা জজ কোর্টের পুরাতন ভবনের লিফট ছিঁড়ে ১২ জন লোক আহত হন। এদের মধ্যে আইনজীবীর সংখ্যাই বেশি। আহতদের দু’জনের অবস্থা গুরুতর। এত বড় একটি ঘটনা ঘটে গেলেও আমরা কতটুকু সচেতন হবো সেটা দেখার বিষয়। এমনকি তদসংশ্লিষ্টরা কি এই দায় এড়াতে পারেন?

সকালে লিফট ছিঁড়ে পড়ার খবর মুহুর্তের মধ্যেই ছড়িয়ে পড়লে কোর্ট এলাকায় সবাই আতঙ্কিত হয়ে যায়। আর আতঙ্কিত তো হবারই কথা। কারণ কোর্টের লিফটগুলোর যে বেহালদশা তা কারোর অজনা নয়।

ঢাকার সিএমএম কোর্টের ৩টি লিফটের মধ্যে দুইটি খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। একটি লিফট যখন ৩য় তলায় যায় তখন লিফট যে ঝাঁকি দেয় তা ঝুঁকির শঙ্কা বহন করে। এমনকি হাত দিয়ে জোরে চেপে দরজা বন্ধ করতে হয় সেই লিফটের। অন্যটি ওভারলোড কিনা এমন কোন সংকেত দেয় না। আর জেলা জজ ভবনের লিফটগুলোও একই রকম ঝুঁকিপূর্ণ। ঠিকমত কাজ করেনা। বলতে গেলে সবগুলো লিফটের কোনটিই গুণগতভাবে ভালো নয়।

প্রতিদিন হাজার হাজার বিচারপ্রার্থী মানুষ ঢাকা জজ কোর্টে আসেন। কয়েক হাজার আইনজীবী নিয়মিত পেশাগত কারণে আসতে হয় এই কোর্টে। সবাইকে এসব লিফট ঝুঁকিপূর্ণ সত্ত্বেও ব্যবহার করতে হয়। ঢাকা আইনজীবী সমিতির একজন সদস্য হিসেবে এতদসংশ্লিষ্ট সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। এই ঝুঁকিপূর্ণ লিফটগুলো পরিহার করে ভালো গুনগত মানের লিফট প্রতিস্থাপন করুন। ন্যায়বিচার প্রত্যাশীদের জন্য আদালত অঙ্গনের সুব্যবস্থাও জরুরী। এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি না ঘটার পূর্বেই ঝুঁকিপূর্ণ লিফটগুলোর প্রতিস্থাপন হোক।

লেখক: আইনজীবী, জজ কোর্ট, ঢাকা