রেজিস্ট্রেশন কার্ড পেতে ভাইস চেয়ারম্যানের কাছে শিক্ষানবিশ আইনজীবীদের আবেদন

প্রতিবেদক : বার্তা কক্ষ
প্রকাশিত: ৬ এপ্রিল, ২০১৯ ১:১২ অপরাহ্ণ
বার কাউন্সিল লোগো

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দুই বছর মেয়াদী এলএলবি (পাস) কোর্স ডিগ্রীধারী শিক্ষানবিশ আইনজীবীরা অ্যাডভোকেটশীপ পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য রেজিস্ট্রেশন কার্ড পেতে বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যান বরাবর আবেদন করেছে শিক্ষানবিশ আইনজীবীরা।

ভুক্তভুগি শিক্ষানবিশ আইনজীবীদের পক্ষে ৯ জন শিক্ষার্থী স্বাক্ষরিত এ আবেদনপত্রের অনুলিপি বার কাউন্সিলের সচিব ও লিগ্যাল এডুকেশন কমিটির সভাপতি বরাবরও পাঠানো হয়েছে। আবেদনপত্রে স্বাক্ষরকারী শিক্ষানবিশ আইনজীবীরা হলেন- মাহমুদুর রশীদ, মোঃ ওবায়দুর রহমান খাঁন, মোঃ মিজানুর রহমান, ইবনে জিসাদ আল নাহিয়ান, মোঃ জসিম উদ্দিন, তামান্না সুলতানা, মোঃ রাকিব হোসেন, ইসরাত জাহান, মাফরুজা সুলতানা।

এ সকল শিক্ষানবিশ আইনজীবী বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় (প্রাইম ইউনিভার্সিটি, উত্তরা ইউনিভার্সিটি, সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি এবং ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি) থেকে ২০১৬, ২০১৭ ও ২০১৮ সালে দুই বছর মেয়াদী এলএলবি (পাস) কোর্স ডিগ্রী অর্জন করেন। এরপর যথারীতি বাংলাদেশ বার কাউন্সিলে পিউপিলেজ ফরম জমা দিয়ে দেশের বিভিন্ন জজকোর্টে শিক্ষানবিশ আইনজীবী হিসেবে কর্মরত আছেন। বার কাউন্সিলের চাহিদামত তাদের স্ব স্ব বিশ্ববিদ্যালয়সমূহ তাদের পাসের তথ্যাদি যথাসময়ে বার কাউন্সিলে পাঠিয়েছে। ইতোমধ্যে তাদের শিক্ষানবিশকাল (৬ মাস) সমাপ্ত হয়েছে এবং এরপর থেকেই বিগত কয়েক মাস যাবত বার কাউন্সিলের রেজিস্ট্রেশন ও পরীক্ষা নিয়ন্ত্রণ শাখায় রেজিস্ট্রেশন কার্ড সংগ্রহের জন্য যোগাযোগ করা হলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, তাদেরকে রেজিস্ট্রেশন কার্ড বিতরণের ব্যাপারে এখনো কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। ফলে তাদের পেশাগত জীবন নিয়ে তারা অনিশ্চয়তায় ভুগছেন।

এদিকে বাংলাদেশ বার কাউন্সিল ইতোমধ্যে আইনজীবী তালিকাভুক্তির আসন্ন নৈর্ব্যক্তিক (MCQ) পরীক্ষার জন্য রেজিস্ট্রেশন কার্ড বিতরণের পাশাপাশি ফরম পূরণের কাজও শুরু করেছে। কিন্তু রেজিস্ট্রেশন কার্ড পাওয়ার অনুমতি না থাকায় এসব শিক্ষানবিশ আইনজীবীদের পারিবারিক, সামাজিক ও অর্থনৈতিক জীবনে অশান্তি নেমে এসেছে। পেশাগত ভবিষ্যৎ নিয়ে এই অনিশ্চয়তা তাদের খুবই পীড়া দিচ্ছে এবং তারা ভারসাম্যহীন হয়ে পড়ছেন।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন কর্তৃক অনুমোদিত বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকেই তারা দুই বছর মেয়াদী এলএলবি (পাস) কোর্স ডিগ্রী অর্জন করেন। যথাযথ নিয়মানুসারে বার কাউন্সিলে পিউপিলেজ ফরম জমা দিয়েছেন। এছাড়া দুই বছর মেয়াদী এলএলবি (পাস) কোর্স অগ্রহণযোগ্য ঘোষণা করে আপিল বিভাগের ২০১৭ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি ঘোষিত রায়ের পূর্বে এ সকল শিক্ষানবিশ আইনজীবী উক্ত বিশ্ববিদ্যালয় সমূহের আইন বিভাগের অধীনে এলএলবি পাস কোর্সের বিভিন্ন সেমিস্টারে অধ্যায়নত ছিলেন। একইসঙ্গে তারা আপিল বিভাগের ঐ রায়ের আগেই (২০১৫ ও ২০১৬ সালে) সরকার কর্তৃক অনুমোদিত বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে দুই বছর মেয়াদী এলএলবি (পাস) কোর্সে যথাযথ নিয়ম মেনে ভর্তি হয়েছিলেন।

এমতাবস্থায়, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে এ সকল শিক্ষানবিশ আইনজীবীদের আকুল আবেদন, অনতিবিলম্বে রেজিস্ট্রেশন কার্ড প্রদান করে আসন্ন অ্যাডভোকেটশীপ এনরোলমেন্ট পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ যেন তাদের প্রদান করা হয়।