সড়ক দুর্ঘটনার মামলা হত্যা মামলা বিবেচনায় আমলি আদালতে প্রেরণ, অতঃপর…

প্রতিবেদক : বার্তা কক্ষ
প্রকাশিত: ২ মে, ২০১৯ ১:১৮ অপরাহ্ণ
দেলোয়ার হোসাইন শামীম, সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, কক্সবাজার।

প্রথমে একটা দূরালাপনি কথোপকথন দিয়ে শুরু করি, গত ৩০ এপ্রিল, সন্ধ্যার ঘটনা। হঠাৎ সুনামগঞ্জ জেলার মাননীয় চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আল মাসুদ স্যার নিজের পরিচয় দিয়ে ফোন করলেন আমাকে। বললেন –
: তোমার নামতো দেলোয়ার? আমি সিজেএম, সুনামগঞ্জ বলছি, তুমি এখন কোথায় কর্মরত?
: জী স্যার, আমি দেলোয়ার এবং বর্তমানে কক্সবাজারে কর্মরত আছি।
: তুমি অসাধারণ একটা কাজ করছো বিধায় মূলত তোমাকে একটা ধন্যবাদ দেওয়ার জন্য এই কল করেছি। তোমার কি মনে পড়ে, সুনামগঞ্জ জেলায় কর্মরত থাকার সময়ে তুমি বিচার পর্যায়ে থেকে সড়ক দুর্ঘটনার একটা মামলাকে হত্যা মামলা বিবেচনায় আমলি আদালতে ফেরত পাঠিয়েছিলে? উক্ত মামলায় আজকে একজন আসামীকে সিআইডি (CID) আটক করেছে এবং আসামী আজকে ঘটনার দায় স্বীকার করে জবানবন্দি প্রদান করেছে।

এটুকু কথোপকথনের পরে মূল ঘটনার বর্ণনায় চলে যাওয়াই উত্তম। ২০১৭ সালের প্রায় শেষ দিকের কথা, এজলাসে বসে সাক্ষীদের বক্তব্য রেকর্ড করছিলাম। একটা সড়ক দুর্ঘটনার মামলা সাক্ষীর জন্য ডাকা হলে সাক্ষী এএসআই পদমর্যাদার একজন র‍্যাব (RAB) সদস্য জানালেন –
: “স্যার এটাতো সড়ক দুর্ঘটনার মামলা না। রাত্রিবেলা সিলেট সুনামগঞ্জ মহাসড়কে টহলকালে দেখতে পাই একটা চলন্ত গাড়ি থেকে একটা তরুণী লাফিয়ে পড়ে কিংবা তাকে ফেলে দেওয়া হয় এবং পাশ দিয়ে যাওয়া অপর একটি সিএনজি চালিত অটোরিকশা মেয়েটির পায়ের উপর চাপা দিয়ে চলে যায়। আমরা তাত্ক্ষণিকভাবে মেয়েটিকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নিয়ে যাই বিধায় আসামীদের পিছনে ছুটতে পারি নাই।”

র‍্যাব (RAB) সদস্যের উপরোক্ত বক্তব্য হলফান্তে রেকর্ড করে নিজের অবজারভেশন দিয়ে মামলাটির অধিকতর তদন্তের ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশনা প্রদান করে নথি সংশ্লিষ্ট আমলি আদালতে ফেরত পাঠিয়ে দিই।

প্রায় দেড় বছর পর গত মঙ্গলবার (৩০ এপ্রিল) সুনামগঞ্জের বর্তমান সিজেএম স্যারের নিকট জানতে পারলাম ধৃত আসামী স্বীকার করে তারা হীন উদ্দেশ্যে চরিতার্থ করার জন্য তরুণীটিকে জোর পূর্বক গাড়িতে তুলে নিয়ে যাওয়ার সময় দস্তাদস্তির একপর্যায়ে ঘটনায় নিহত তরুণী চলন্তগাড়ি হতে পড়ে যায়।

পুরো ঘটনা বর্ণনায় আমার সন্তুষ্টির জায়গা দুটি। প্রথমত, প্রকৃত ঘটনা উদঘাটিত হয়েছে এবং প্রকৃত অপরাধীরা বিচারের আওতায় আসছে। দ্বিতীয়ত, মাননীয় চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, সুনামগঞ্জ কর্তৃক ধন্যবাদ জানানোর মাধ্যমে উৎসাহিতকরণ।

কক্সবাজারের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দেলোয়ার হোসাইন শামীম- এর ফেসবুক পোস্ট থেকে নেওয়া