বাংলাদেশের পঞ্চম প্রধান বিচারপতি


প্রকাশিত :২৪.১১.২০১৬, ৫:৫৬ অপরাহ্ণ

chief-justice-biography-5বিচারপতি বদরুল হায়দার চৌধুরী বাংলাদেশের একজন প্রখ্যাত আইনবিদ এবং ৫ম প্রধান বিচারপতি।

জন্ম ও পারিবারিক পরিচিতি
বদরুল হায়দার চৌধুরী ১৯২৫ সালের ১ জানুয়ারি তারিখে তত্কালীন ব্রিটিশ ভারতের নোয়াখালী জেলার সুধারাম থানার নুরসোনাপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম খান বাহাদুর মোহাম্মদ গাজী চৌধুরী।

শিক্ষাজীবন
বদরুল হায়দার চৌধুরী ১৯৪৮ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইতিহাসে এম.এ. ও ১৯৫১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এলএলবি ডিগ্রি লাভের পর ১৯৫৫ সালে যুক্তরাজ্যের লিংকনস্‌-ইন থেকে বার আ্যট ল’ ডিগ্রি অর্জন করেন।

কর্মজীবন
তিনি ১৯৫৬ সালে ঢাকা হাইকোর্টে আইনজীবি হিসাবে কাজ শুরু করেন এবং ১৯৭১ সালের এপ্রিলে হাইকোর্ট বিভাগের বিচারক হিসেবে ও পরবর্তীতে ১৯৭৮ সালে আপিল বিভাগে বিচারক হিসাবে নিয়োগ লাভ করেন।

১৯৮৯ সালের ৩০ নভেম্বর তারিখে বিচারপতি এফ. কে. এম. এ মুনিমের অবসর গ্রহণের প্রেক্ষিতে বাংলাদেশের মহামান্য রাষ্ট্রপতি বাংলাদেশের ৫ম প্রধান বিচারপতি হিসাবে বদরুল হায়দার চৌধুরীকে নিয়োগ প্রদান করেন এবং তিনি ১৯৮৯ সালের ১ ডিসেম্বর তারিখে প্রধান বিচারপতি হিসাবে শপথ গ্রহণ করেন। সংবিধানের ৮ম সংশোধনী মামলায় তাঁর রায় দেশের সাংবিধানিক আইনজ্ঞদের দৃষ্টিতে দেশের আইনি ইতিহাসে একটি ঐতিহাসিক দৃষ্টান্ত।

১৯৮৯ সালের ৩১ ডিসেম্বর তারিখে ৬৫ বছর পূর্ণ হওয়ায় তিনি অবসর গ্রহণ করেন।

বিচারপতি বদরুল হায়দার চৌধুরী সমাজকল্যাণমূলক কর্মকান্ডে তৎপর ছিলেন। ১৯৭২ সালে তিনি ডায়াবেটিক অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান এবং ১৯৮০ থেকে ১৯৯৮ সাল পর্যন্ত চেশায়ার ফাউন্ডেশন হোম ম্যানেজমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান ছিলেন। অবসর গ্রহণের পর তিনি বাংলাদেশ সোসাইটি ফর এনফোর্সমেন্ট অব হিউম্যান রাইটস-এর সভাপতি হন।

রচনাবলী
বদরুল হায়দার চৌধুরী তাঁর রচিত Those Were the Days (১৯৫৬) স্মৃতিকথার জন্য লেখক হিসেবে সুখ্যাতি লাভ করেন। তাঁর অপরাপর গ্রন্থ The Long Echoes (১৯৯০) এবং The Evolution of the Supreme Court of Bangladesh (১৯৯১)।

মৃত্যু
১৯৯৮ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি ঢাকায় তাঁর মৃত্যু হয়।

 

 

তথ্যসূত্র: বাংলাপিডিয়া ও উইকিপিডিয়া



ট্রেডমার্ক ও কপিরাইট © 2016 lawyersclubbangladesh এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত।
Designed By Linckon