সতর্ক করে দিয়ে গাইবান্ধার এসপিকে অব্যাহতি


প্রকাশিত :০৮.০১.২০১৭, ৩:২৭ অপরাহ্ণ

hc-0000-4-500x333

সাঁওতালদের উচ্ছেদের ঘটনায় হাইকোর্টে দেয়া প্রতিবেদনে ‘বাঙালি দুষ্কৃতকারী’ শব্দ ব্যবহার করার বিষয়ে নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়ে অব্যাহতি পেলেন গাইবান্ধার পুলিশ সুপার (এসপি) মো. আশরাফুল ইসলাম। তবে ভবিষ্যতে শব্দ চয়নে তাকে সতর্ক থাকার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

রোববার হাইকোর্টের বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি কৃষ্ণা দেবনাথের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ তাকে সতর্ক করে ক্ষমা করে দেন। একইসঙ্গে আগুন লাগানোর ঘটনা তদন্ত করে প্রতিবেদন জমা দিতে আগামী ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত সময় দিয়েছেন আদালত। আদালতে আজ উপস্থিত ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মোতাহার হোসেন সাজু।

এর আগে বাঙালি দুষ্কৃতকারী শব্দ ব্যবহার করার বিষয়ে ব্যাখ্যা দিয়ে গাইবান্ধার জেলা প্রশাসক (ডিসি) আবদুস সামাদকে তলব করে সংশ্লিষ্ট বেঞ্চ। তলবের পর গত ১২ ডিসেম্বর তিনি আদালতে হাজির  হয়ে এ বিষয়ে ব্যাখ্যা দেন। এরপর আদালত ডিসিকে ক্ষমা করে দেন। একইসঙ্গে গাইবান্ধার এসপিকে সশরীরে তলব করেন হাইকোর্টের ওই বেঞ্চ।

উল্লেখ্য, গত ৬ নভেম্বর গোবিন্দগঞ্জে রংপুর চিনিকলের জমিতে আখ কাটাকে কেন্দ্র করে পুলিশ ও চিনিকল শ্রমিক-কর্মচারীদের সঙ্গে সাঁওতালদের সংঘর্ষ হয়। এতে তিন সাঁওতালের মৃত্যু হয়। পুলিশসহ উভয় পক্ষের অন্তত ৩০ জন আহত হন।

সেই ঘটনার প্রেক্ষিতে আদালতে মোট তিনটি রিট দায়ের করা হয়। সেসব রিটের প্রেক্ষিতেই গত ১৭ নভেম্বর সাঁওতালদের ধান কাটার সুযোগ দিতে অথবা ধান কেটে সাঁওতালদের বুঝিয়ে দিতে চিনিকল কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে সাঁওতালদের অবাধে চলাফেরার অধিকার নিশ্চিতে নির্দেশ দেয়া হয়।



ট্রেডমার্ক ও কপিরাইট © 2016 lawyersclubbangladesh এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত।
Designed By Linckon