নারায়ণগঞ্জে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের পাল্টা কমিটি


প্রকাশিত :১২.১১.২০১৭, ১০:৫৩ পূর্বাহ্ণ

বিএনপিপন্থী জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের কেন্দ্রের অনুমোদিত কমিটির পাল্টা কমিটি গঠন করেছেন নারায়ণগঞ্জের বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা।

নারায়ণগঞ্জ শহরের মাসদাইর মজলুম মিলনায়তনে গতকাল শনিবার ফোরামের পাল্টা আংশিক কমিটি গঠন করা হয়।

জানাগেছে, আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট আবদুল বারী ভুইয়াকে সভাপতি, অ্যাডভোকেট আব্দুল হামিদ খান ভাসানী ভুইয়া সাধারণ সম্পাদক, যুগ্ম সম্পাদক পদে অ্যাডভোকেট আজিজুর রহমান মোল্লা, অ্যাডভোকেট শরীফুল ইসলাম শিপলু ও অ্যাডভোকেট আজিজ আল মামুনকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে এ আংশিক কমিটি গঠন করা হয়। এছাড়াও কমিটিতে আরো বেশকজন আইনজীবী রয়েছেন। এ কমিটিতে মুলত বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার বলয়ের আইনজীবীরা।

কমিটি গঠনের বিষয়ে নিশ্চিত করে অ্যাডভোকেট আবদুল হামিদ খান ভাসানী ভুইয়া বলেছেন, ‘অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার নারায়ণগঞ্জের আইনজীবী ফোরামকে অভিভাবক হিসেবে ৩০ বছর যাবত নেতৃত্ব দিচ্ছেন। আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে তিনি সরকারি দলের রক্তচক্ষুকে উপেক্ষা করে ভোট গণনা ও ফলাফলেও উপস্থিত থাকেন। আমরা তৈমূর আলম খন্দকারের নেতৃত্বে ভুমিকা রেখেছি। তাই আমরা সক্রিয় আইনজীবীদের নিয়ে কমিটি গঠন করেছি। এ কমিটিতে কেন্দ্রীয় ফোরামের নেতাদের সমর্থন রয়েছে।’

এ কমিটি গঠনের বিষয়ে বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার বলেছেন, এ কমিটির প্রতিই আমার সমর্থন আছে। কারন ঢাকায় বসে একতরফা কেউ যাকে তাকে পদ দিয়ে কমিটি গঠন করে দিবে সেটা আমরা মানি না। সামনে আন্দোলন সংগ্রাম। অনেক নেতাকর্মীরা বিপুল সংখ্যক মামলায় আসামী। তাই এসব নেতাকর্মীদের পক্ষে আইনী লড়াই চালাতে হলে আইনজীবীদের সহযোগীতা প্রয়োজন। আইনজীবীরাও আন্দোলনে ব্যাপক ভুমিকা রাখে। এ কমিটি তৃন্যমুল ও মাঠ পর্যায়ের আইনজীবীদের দিয়ে তারা গঠন করেছে তাই এ কমিটিতে আমার সমর্থন রয়েছে।’

প্রসঙ্গত, গত ৭ জুন কেন্দ্রীয় ফোরামের সেক্রেটারি ব্যারিস্টার মাহাবুব উদ্দীন খোকনের স্বাক্ষরে নারায়ণগঞ্জ ফোরামের ২৮৭ সদস্যের কমিটি অনুমোদন দেয়া হয়। কেন্দ্রীয় ফোরাম থেকে নারায়ণগঞ্জ ফোরামের যে কমিটি পাঠানো হয় তাতে অ্যাডভোকেট সরকার হুমায়ুন কবিরকে সভাপতি ও অ্যাডভোকেট খোরশেদ আলম মোল্লাকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়। এ কমিটি মূলত গত সিটি নির্বাচনে মেয়র পদে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খানের অনুগতদের দিয়ে গঠন করা হয়। এ কমিটিতে ৩০ জন সহ-সভাপতি, ১৫ জন যুগ্ম সম্পাদক, সাংগঠনিক ও সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মিলে ১৮ জন। এ ছাড়াও তৈমুর আলমকে উপদেষ্টা করে ১৩ সদস্যের উপদেষ্টা পরিষদ রয়েছে।

কেন্দ্রীয় ফোরামের গঠিত এ কমিটি বাতিলের দাবি জানিয়ে গত ১২ জুন নারায়ণগঞ্জ আদালতপাড়ায় বিক্ষোভ মিছিল করেন কমিটি প্রত্যাখ্যানকারীরা। পরে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে ২৮৭ জনের মধ্যে ১৪৪ জন আইনজীবী পদত্যাগ করেন। সেই সঙ্গে প্রধান উপদেষ্টা তৈমুর আলম খন্দকারও পদত্যাগ করেন।

ওই সময় তৈমুর আলম খন্দকার দাবি করেছিলেন, ‘ঢাকায় বসে কেন্দ্রের সেক্রেটারি এককভাবে কমিটি দেয়ার এখতিয়ার রাখেন না। এ কমিটির কোনো বৈধতা নেই।’ পাঁচ মাস পর গতকাল পাল্টা এ কমিটি গঠন করেছেন পদত্যাগী নেতারা।

 

জেলা প্রতিনিধি/ল’ইয়ার্স ক্লাব বাংলাদেশ ডটকম



ট্রেডমার্ক ও কপিরাইট © 2016 lawyersclubbangladesh এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত।
Designed By Linckon