প্যারাডাইস পেপার্সে ৯ বাংলাদেশির নাম


প্রকাশিত :১৯.১১.২০১৭, ১১:১৯ পূর্বাহ্ণ

বহুল আলোচিত প্যারাডাইস পেপার্সে বাংলাদেশিদের নাম উঠে এসেছে। ব্যবসায়ী আব্দুল আউয়াল মিন্টুর পরিবারের সদস্যসহ ৯ ব্যক্তির নাম উঠে এসেছে এই তালিকায়। অফশোর কোম্পানির মাধ্যমে তারা বিভিন্ন দেশে এই বিনিয়োগ করেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

তালিকায় আব্দুল আউয়াল মিন্টু, তার স্ত্রী নাসরিন ফাতেমা আউয়াল এবং তিন ছেলে- তাবিথ মোঃ আউয়াল, তাফসির মোহাম্মদ আউয়াল ও তাজওয়ার মোহাম্মদ আউয়ালের নাম রয়েছে। তাদের ব্যবসায়িক ঠিকানা হিসেবে মাল্টিমোড গ্রুপের ঢাকার প্রধান কার্যালয়ের ঠিকানা দেওয়া রয়েছে। এছাড়া আরো উঠে এসেছে ব্যবসায়ী ফয়সাল চৌধুরী, ফরিদা ইয়াসমিন মোঘল, শহিদউল্লাহ ও সমীর আহমেদের নাম। তালিকায় রয়েছে ব্রামার অ্যান্ড পার্টনার্স অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট (বাংলাদেশ) লিমিটেড নামে একটি প্রতিষ্ঠানের নামও।

গতবছর পানামা পেপার্স নিয়ে বিশ্বজুড়ে ঝড় ওঠার পর এই মাসের শুরুতে বারমুডার ল’ ফার্ম অ্যাপলবির গ্রাহকদের ১ কোটি ৩৪ লাখ নথি ফাঁস করে ইন্টারন্যাশনাল কনসোর্টিয়াম অব ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিস্ট (আইসিআইজে)। বিশ্বের ১৮০টি দেশের রাজনীতিক, সেলিব্রেটি ও বিত্তশালী মানুষের অর্থনৈতিক লেনদেন ও মালিকানা সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্যের এক বিশাল ডাটাবেজ প্রকাশ করে তারা। তবে যাদের নাম এসেছে, তারা আইন ভেঙে সম্পদ গড়েছেন এমন অভিযোগ করা হয়নি।

আইসিআইজের দাবি হলো- অর্থপাচার করতে কিংবা কর ফাঁকি দিতে অফশোর কোম্পানির মাধ্যমে ভিন্ন দেশে বিনিয়োগ করে বা অর্থ জমা রেখে লাভবান হচ্ছেন তারা। কয়েক ধাপে প্রকাশিত এই তালিকায় শুরুর দিকে উঠে এসেছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, ব্রিটেনের রাণী দ্বিতীয় এলিজাবেথ, কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোসহ বিশ্বের বহু স্বনামধন্য ব্যক্তির নাম। সম্প্রতি দ্বিতীয় ধাপে প্রকাশিত তথ্যে বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের নাম উঠে আসে।

কর থেকে বাঁচার জন্য বিভিন্ন ট্যাক্স হেভেন দেশ অর্থাত্ যেখানে কর দিতে হয় না বা খুবই নিম্নহারে কর দেওয়া যায় এমন দেশে অর্থ সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। তাই এই কেলেঙ্কারির নাম দেয়া হয়েছে ‘প্যারাডাইস পেপার্স’। এতে গোপনে বিপুল পরিমাণ অর্থ করস্বর্গ হিসেবে পরিচিত দেশ ও অঞ্চলের অফশোর কোম্পানিতে বিনিয়োগের তথ্য রয়েছে। প্রভাবশালী এই ব্যক্তিরা গোপনে অফশোর কোম্পানির মাধ্যমে বিপুল অংকের টাকা বিনিয়োগ করেছেন এমন সব জায়গায়, যেখানে কর নিয়ে কড়াকড়ি নেই। সম্পদের উত্স নিয়েও কেউ মাথা ঘামায় না।

 

নিজস্ব প্রতিনিধি/ল’ইয়ার্স ক্লাব বাংলাদেশ ডটকম



ট্রেডমার্ক ও কপিরাইট © 2016 lawyersclubbangladesh এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত।
Designed By Linckon