•  

  • সন্তানের বিরুদ্ধে পিতা-মাতার ভরণপোষণ চেয়ে মামলা


    এ্যাডভোকেট সিরাজ প্রামাণিক
                                      
    দরিদ্র কৃষক লিয়াকত আলী। বাড়ি চাঁদপুর জেলার হাজীগঞ্জ উপজেলার সুহিলপুর পশ্চিম পাড়া গ্রামে। চাষাবাদযোগ্য সামান্য জমি ছাড়া আর কিছুই নেই। স্ত্রী মাজেদা খাতুন আর তিন পুত্র ইয়াসিন রানা, আল-আমিন ও হাবিবুর রহমান জিলানী’কে নিয়ে টানাপোড়েন সংসার। সুখের নাগালের আশায় জমি বিক্রি করে বড় ছেলে ইয়াসিন রানাকে বিদেশ পাঠান। কিন্তু বিধিবাম! বিদেশ থেকে আয়কৃত টাকায় পিতা-মাতার ভরণপোষণ না দিয়ে সব টাকা পাঠান স্ত্রীর কাছে। স্ত্রী রাশিদা আক্তার রিতা, তার পিতা শেখ মোঃ বাদল (বাবুল), রিতার মা লুৎফা বেগম ও রিতার ভাই সোহেল তাদের সংসারে ঐসব টাকা খরচ করে দেয়।। লিয়াকত  আলী ও মাজেদা খাতুন তাদের সন্তানের সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে স্ত্রীর বাবা, মা ও ভাইয়ের আপত্তির কারণে তারা যোগাযোগ করতে পারেনা। এমতাবস্থায় লিয়াকত আলীর ছেলে আল-আমিন ও হাবিবুর রহমান জিলানীর লেখাপড়া এবং তাদের উপার্জন করার কোন পথ না থাকার কারণে অনাহারে অর্ধাহারে থেকে দিন কাটাতে হয়। গত ১ নভেম্বর’২০১৩ সালে ইয়াসিন রানা দেশে এসে অপর স্ত্রী ও স্ত্রীর পরিবারের পরামর্শে নিজ বাড়িতে না গিয়ে ঢাকা থেকে ঢাকা নবাবগঞ্জের দেওতলা গ্রামে শ্বশুড় বাড়িতে চলে যায়। সেখান থেকে ১৪ নভেম্বর ইয়াসিন রানা পিতার বাড়িতে আসে। সাথে নিয়ে আসে স্ত্রী, শ্বশুর, শাশুড়ি ও শ্যালক। ইয়াসিন রানাসহ সাথে স্ত্রী, শ্বশুর, শাশুড়ী ও শ্যালক তার পিতা-মাতাকে ভরণ-পোষন, চিকিৎসাসেবা না দিয়ে উল্টো বিভিন্ন ধরনের হুমকি ধমকি দিয়ে জমি-জমা, সহায় সম্পত্তি সকল কিছু ইয়াসিন রানার নামে রেজিস্ট্রি করে দেয়ার জন্য চাপ সৃষ্টি করে। না দিলে প্রাণে মেরে ফেলার জন্য দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হুমকি দেয়।

    এমতাবস্থায় উপায়ন্তর না পেয়ে গত ১৯ নভেম্বর’২০১৩ ইং তারিখে মঙ্গলবার মোঃ লিয়াকত আলী বাদী হয়ে ইয়াসিন রানা, রাশিদা আক্তার রিতা, শেখ মোঃ বাদল, লুৎফা বেগম ও মোঃ সোহেলকে বিবাদী করে চাঁদপুর বিজ্ঞ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত-৪ এর বিজ্ঞ বিচারক মোঃ শওকত হোসাইনের আদালতে ২০১৩ সনের ৪৯নং আইন সন্তান কর্তৃক পিতা-মাতার ভরণ-পোষন নিশ্চিত করণের লক্ষে প্রণীত আইন ৫/৫ (০১) এবং ৫(২) ধারায় অভিযোগ দায়ের করে। বিজ্ঞ বিচারক ঐ অভিযোগের প্রেক্ষিতে মামলার প্রধান আসামী মোঃ ইয়াসীন রানার বিরুদ্ধে সমন জারি করেন।

    মামলার অভিযোগে মোঃ লিয়াকত আলী উল্লেখ করেন, ১নং বিবাদী মোঃ ইয়াসীন রানা তার ছেলে। বিগত ২০০৪ সালে লিয়াকত আলী .৩৯ একর জমি বিক্রি করে তার সন্তানকে ৩ লাখ টাকা খরচ করে আবুধাবীতে পাঠান। সেখানে ইয়াসিন রানা বাংলাদেশী টাকায় ৫৬ হাজার টাকা বেতনে চাকুরি করে। আবুধাবী যাওয়ার পর অপর আসামীদের কুপরামর্শে বাদী লিয়াকত আলী ও তার স্ত্রী মোসাঃ মাজেদা খাতুন (৫৫)-এর সাথে সে যোগাযোগ, চিকিৎসাসেবা ও ভরণ-পোষন না দিয়ে অপর বিবাদীদের সাথে যোগাযোগ করে বিদেশ থেকে ইয়াসিন রানা টাকা-পয়সা তার স্ত্রী রাশিদা আক্তার রিতার কাছে পাঠাতো। অপর বিবাদীদের আপত্তির কারণে বাদী লিয়াকত আলী ও তার স্ত্রী মাজেদা খাতুনের ভরণ-পোষন না করে বিদেশ থেকে পাঠানো সকল টাকা রাশিদা আক্তার রিতা, তার পিতা শেখ মোঃ বাদল (বাবুল), রিতার মা লুৎফা বেগম ও রিতার ভাই সোহেল তাদের সংসারে ঐসব টাকা খরচ করে দেয়

    সন্তান জন্ম দান ও লালন-পালন কারী পিতা-মাতা বৃদ্ধ বয়সে যাতে সন্তান কর্তৃক অবহেলা ও বঞ্চনার শিকার না হন সে জন্য পিতা-মাতার ভরণ-পোষণ আইন, ২০১৩ পাশ হয়। আমরা জানি, পারিবারিক আইনে স্ত্রী এবং সন্তানের ভরণপোষণের বিধান রয়েছে। সাধারণত স্ত্রীর ভরণপোষণের দায়িত্ব স্বামীর এবং সন্তানের ভরণপোষণের দায়িত্ব বাবার ওপর ন্যস্ত হয়। আবার অনেক সময় স্ত্রী তার বিয়েবিচ্ছেদের পরও স্বামীর কাছ থেকে একটা নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত ভরণপোষণ দাবি করতে পারেন। কিন্তু বাবা-মা যখন বার্ধক্যে উপনীত হন, তখন তাদের ভরণপোষণের দায়িত্ব কার উপর অর্পিত হবে এ আইনে সে সম্পর্কিত সুষ্পষ্ট বর্ণনা রয়েছে।

    সব পিতা-মাতাই সন্তানের মঙ্গল চান। সাধারণত কোনো পিতা-মাতাই সন্তানের বিরুদ্ধে যান না। কিন্তু পরিস্থিতি যদি এমন হয় যে কোনো সন্তান পিতা-মাতাকে বাধ্য করে বৃদ্ধাশ্রম বা অন্য কোথাও বসবাস করতে, অথবা কোনো সন্তান যদি যুক্তিসঙ্গত কোনো কারণে পিতা-মাতার ভরণপোষণ না করেন, তাহলে তাঁরা এ আইনের অধীনে ভরণপোষণের জন্য আইনের আশ্রয় নিয়ে তাদের অধিকার আদায় করতে পারেন।

    ২০১৩ সালের ১ জুলাই চীনে এরকম একটি আইন পাস হয়। ‘এলডারলি রাইটস ল’ বা প্রবীণ অধিকার আইন নামের সেই আইনটির মূলকথা, সন্তানদের অবশ্যই বৃদ্ধ বাবা-মার দেখাশোনা করতে হবে। ৭৭ বছরের বৃদ্ধ যে মা ৪০ কিলোমিটার বা ২৫ মাইল দূরে থাকেন, তাকে বন্ধের দিনগুলো ছাড়াও দুই মাসে অন্তত একবার দেখতে যেতে হবে। এভাবে আইন করে আসলে বৃদ্ধ বাবা-মায়ের অধিকার কতটুকু সংরক্ষণ করা যাবে বলা মুশকিল। তারপরও জনগণের মাঝে সচেতনতা সৃষ্টিও আইনের অন্যতম উদ্দেশ্য বলে সেদিক থেকে এই আইনের তাৎপর্য অনস্বীকার্য। এবার চলুন পিতা-মাতার ভরণ-পোষণ আইন, ২০১৩ তে কি আছে।

    পিতা-মাতার ভরণপোষণ আইন কী?
    পিতা-মাতার ভরণপোষণ আইন একটি জনকল্যাণকর আইন। বাংলায় প্রণীত এ আইনের প্রস্তাবনায় বলা হয়েছে, যেহেতু সন্তান কর্তৃক পিতা-মাতার ভরণপোষণ নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে বিধান করা সমীচীন ও প্রয়োজনীয় সেহেতু আইনটি প্রণয়ন করা হলো। অর্থাৎ কোনো সন্তান যদি কোনো যুক্তিসঙ্গত কারণে পিতা-মাতার ভরণপোষণ না করে তাহলে তারা ভরণপোষণের জন্য এ আইনের অধীনে লিখিত অভিযোগের মাধ্যমে তাদের অধিকার আদায় করতে পারবেন।

    যাদের উপর ভরণপোষণের দায়িত্ব ন্যস্ত
    আইনে ভরণপোষণ প্রদানে সন্তান বলতে শুধু পুত্রকেই বোঝায়নি বরং কন্যাকেও বুঝিয়েছে। অর্থাৎ পিতা-মাতার ভরণপোষণের দায়িত্ব শুধু ছেলের একার নয় বরং মেয়েকেও নিতে হবে। এর মাধ্যমে নারী-পুরুষের মধ্যে সমতা আনা হয়েছে। আর ভরণপোষণ শুধু কোনো বিশেষ সন্তান নেবে তা নয় বরং সবাইকে নিতে হবে। তবে একাধিক সন্তান থাকলে তারা নিজেদের মধ্যে আলাপ-আলোচনা করে তাদের পিতা-মাতার ভরণপোষণ নিশ্চিত করবে। কোনো সন্তান পিতা-মাতাকে তাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে কোনো বৃদ্ধাশ্রম বা অন্য কোথাও একত্রে বা আলাদাভাবে বসবাস করতে বাধ্য করতে পারবে না। প্রত্যেক সন্তানকেই তাদের পিতা-মাতার স্বাস্থ্য সম্পর্কে নিয়মিত খোঁজখবর রাখতে হবে এবং চিকিৎসাসেবা প্রদান করতে হবে। পিতা-মাতা একত্রে বা আলাদা বসবাস করলে প্রত্যেক সন্তানকে সাধ্যমতো তাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে হবে।

    ভরণপোষণের পরিমাণঃ
    পিতা-মাতা যদি সন্তানের সঙ্গে বসবাস না করেন তবে তাদের প্রত্যেক সন্তান নিজ নিজ উপার্জন থেকে যুক্তিসঙ্গত পরিমাণ অর্থ প্রদান করবে।

    পিতা-মাতা ব্যতীত আর যাদের উপর ভরণপোষণের দায়িত্ব
    আইনটি শুধু পিতা-মাতার ভরণপোষণ বিষয়েই সীমাবদ্ধ থাকেনি। পিতা-মাতার অবর্তমানে দাদা-দাদি ও নানা-নানির ভরণপোষণ বিষয়েও জোর দিয়েছে। পিতার অবর্তমানে দাদা-দাদিকে এবং মাতার অবর্তমানে নানা-নানিকে পিতা-মাতার মতো ভরণপোষণ দিতে হবে।

    পিতা-মাতার ভরণপোষণে অবাধ্য সন্তানের শাস্তিঃ
    আইনটি সন্তানদের বিভিন্ন দায়িত্ব দেয়ার পাশাপাশি অপরাধ, দন্ড ও বিচারব্যবস্থা কেমন হবে সে বিষয়েও বিধান দিয়েছে। যেমন-কেউ যদি এই বিধানাবলি লঙ্ঘন করে তবে সর্বোচ্চ এক লাখ টাকা পর্যন্ত অর্থদন্ড হতে পারে। অনাদায়ে সর্বোচ্চ তিন মাসের কারাদন্ড প্রদান করতে পারে আদালত। এছাড়া কোনো সন্তানের স্ত্রী বা স্বামী কিংবা পুত্র-কন্যা বা অন্য কোনো নিকটাত্মীয় যদি পিতা-মাতা বা দাদা-দাদি বা নানা-নানির ভরণপোষণ প্রদানে বাধা দেয় বা অসহযোগিতা করে তবে তার সাজাও উপরোল্লিখিত দন্ডের মতোই হবে।

    অপরাধের ধরনঃ
    আইনে কেউ অপরাধ করলে অবশ্যই তা আমলযোগ্য। এই আইনের অধীনে দায়েরকৃত মামলায় জামিনও পাওয়া যেতে পারে। মামলায় আপস-মীমাংসারও সুযোগ রয়েছে।

    যেখানে অভিযোগ দায়ের করতে হয়
    অপরাধের অভিযোগ দায়ের ও বিচার হবে প্রথম শ্রেণির জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট বা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে। তবে অপরাধের লিখিত অভিযোগ পিতা-মাতাকেই দায়ের করতে হবে। অন্যথায় আদালত তা গ্রহণ করবেন না। পিতা-মাতার অবর্তমানে কে লিখিত অভিযোগ করার অধিকারী সে বিষয়ে আইনে সুস্পষ্টভাবে বলা হয়নি।

    আদালতের বাইরে বিকল্প সমাধানঃ
    আদালত সংশ্লিষ্ট অভিযোগের আপস নিষ্পত্তির জন্য সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বা মেম্বার বা কাউন্সিলর কিংবা অন্য কোনো উপযুক্ত ব্যক্তির কাছে প্রেরণ করতে পারবেন। এ ক্ষেত্রে উভয় পক্ষকে শুনানির সুযোগ দিয়ে তবেই নিষ্পত্তি করতে হবে এবং তখনই তা উপযুক্ত আদালত কর্তৃক নিষ্পত্তি হয়েছে বলে গণ্য হবে।

    আমদের কাছের দেশ সিঙ্গাপুরে ১৯৯৫ সালে ‘মেইনটেইন্যান্স অব প্যারেন্ট এ্যাক্ট’ প্রণীত হয় এবং ১ জুন ১৯৯৬ সালে এ আইন কার্যকর হয়। এ আইনে অসমর্থ পিতামাতার সুরক্ষা ও ভরণ-পোষণ এর জন্য সন্তানদের প্রতি নির্দেশনা রয়েছে। আইন অমান্যকারীকে আদালতের মাধ্যমে ৫০০০ সিঙ্গাপুরী ডলার জরিমানা ও কারাদন্ডের বিধান রয়েছে। পাশের দেশ ভারতে মেইনটেইন্যান্স এন্ড ওয়েলফেয়ার অব প্যারেন্ট এন্ড সিনিয়র সিটিজেনস এ্যাক্ট ২০০৭ সালে প্রণীত হয় এবং জম্মু ও কাশ্মীর ব্যাতিত সকল রাজ্যে এ আইন বলবৎ হয়। এ আইনেও পিতামাতার ভরণ পোষণ ও সুরক্ষা নিশ্চয়তা দেয়া হয়েছে। এ আইনেও আইন অমান্যকারীর বিরুদ্ধে জরিমানা ও শাস্তির বিধান রাখা হয়েছে।

    এ আইনে ভরণ-পোষণ অর্থ ক. খাওয়া-দাওয়া খ. বস্ত্র, গ. চিকিৎসা ঘ . বসবাসের সুযোগ সুবিধা এবং সঙ্গ প্রদানকে বুঝানো হয়েছে।  এ আইনের ৩ ধারা মতে প্রত্যেক সন্তানকে পিতা-মাতার ভরণ-পোষণকে নিশ্চিত করতে হবে। একাধিক সন্তান থাকলে নিজেরা আলোচনা করে পিতা-মাতার ভরণ পোষণ নিশ্চিত করবে। এ ধারায় আরো উল্লেখ আছে যে, সন্তানকে পিতা-মাতার একই সঙ্গে এবং একই স্থানে বসবাস করতে হবে। পিতা-মাতার ইচ্ছার বিরুদ্ধে তাদেরকে কোন বৃদ্ধ নিবাস বা অন্য কোন স্থানে একত্রে বা আলাদা করে বসবাস করতে বাধ্যকরা যাবে না। প্রত্যেক সন্তানকে পিতা-মাতার স্বাস্থ্য বিষয়ে খোঁজ খবর এবং প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সেবাও পরিচর্যা করতে হবে। পিতা বা মাতা কিংবা উভয় সন্তান হতে পৃথক বসবাস করলে সন্তানকে তাদের সাথে সাক্ষাৎ করতে হবে। পিতা-মাতা সন্তানদের হতে পৃথক বসবাস করলে সন্তানকে মাসিক বা বার্ষিক আয় হতে যুক্তি সঙ্গত পরিমাণ অর্থ পিতা বা মাতা ক্ষেত্র মত উভয়কে প্রদান করতে হবে।

    এ আইন এর ৪ ধারার বিধান অনুযায়ী সন্তান পিতার অবর্তমানে দাদা-দাদীকে এবং মাতার অবর্তমানে নানা-নানীকে ভরণ পোষন করবে। এআইনের ৫ ধারা মোতবেক পিতা-মতার ভরণ-পোষণ না করলে অনুর্দ্ধ ১ (এক) লক্ষ টাকার জরিমানা এবং অনাদায়ে ৩ মাসের কারাদন্ডের বিধান রয়েছে। একই সাথে ৫(২) ধারা মোতাবেক কোন সন্তানের স্ত্রী বা ক্ষেত্রমতে স্বামী, পুত্র কন্যা অন্য কোন নিকট আত্মীয় ব্যক্তি পিতা মাতা বা দাদা-দাদী বা নানা-নানীর ভরণ-পোষণ করতে বাধা প্রদান করলে বা অসযোগিতা করলে তিনি অপরাধ সংঘটনে সহযোগিতা করেছেন বলে গণ্য হবেন এবং উক্ত দন্ডে দন্ডিত হবেন মর্মে উল্লেখ রয়েছে। আইনের ৭ ধারা মোতাবেক পিতা-মাতার লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে ১ম শ্রেণীর জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট এর আদালতে এ অপরাধের জন্য মামলা দায়ের করা যাবে। আইনে আপোষ মিমাংসার উপর গুরুত্ব আরোপ করা হয়েছে। ইউনিয়ন পরিষদ, পৌরসভা, সিটি কর্পোরেশন এর চেয়ারম্যান, মেয়র, কমিশনারদের আপোষ করে দেয়ার ক্ষমতা দেয়া হয়েছে। এ আপোষ মিমাংসা আদালত কর্তৃক স্বীকৃতি দেয়ার বিধান আইনে রাখা হয়েছে।

    খোরপোষ বা ভরণপোষণের ব্যবস্থা হিন্দু বিবাহ আইন, ১৯৫৫ এবং হিন্দু দত্তক এবং ভরণপোষণ আইন, ১৯৫৬-তেও রয়েছে। ভরণপোষণ আইন, ১৯৫৬-তে স্বামীর কাছ থেকে স্ত্রীর ভরণপোষণ পাবার অধিকারের কথা বলা আছে। বিবাহিতার স্ত্রীর ভরণপোষণের দায়িত্ব নিতে স্বামী বাধ্য। একসঙ্গে বসবাস না করলেও স্ত্রী ভরণপোষণ দাবী করতে পারেন, যদি- স্বামী স্ত্রীর অনুমতি বা সম্মতি ছাড়াই তাঁকে ফেলে রেখে চলে যান, ইচ্ছে করে স্ত্রীকে অবহেলা করেন বা যুক্তিসঙ্গতঃ কারণ ছাড়াই তাঁকে পরিত্যাগ করেন; স্ত্রীকে শারীরিক বা মানসিক ভাবে এমন নির্যাতন করেন যে স্ত্রীর পক্ষে স্বামীর সঙ্গে বসবাস করা ভয়বশতঃ সম্ভব হয় না; স্বামী কোনও ভয়াবহ সংক্রামক রোগে আক্রান্ত হয়ে থাকেন; যদি সেই স্বামীর অন্য কোনও বিবাহিত স্ত্রী থাকেন; যদি স্বামী তাঁর রক্ষিতাকে বাড়িতে এনে সহবাস করেন; হিন্দু ধর্ম পরিত্যাগ করে অন্য ধর্ম গ্রহণ করেন, কিংবা অন্য কোনও যুক্তিসঙ্গত কারণে।

    প্রসঙ্গতঃ হিন্দু দত্তক ও ভরণপোষণ আইনে সহায়-সম্বলহীন পুত্রবধূও শ্বশুরের কাছ থেকে খোরপোষ পেতে পারেন। সহায়-সম্বলহীন বলতে বোঝাচ্ছে যে, সেই নারী যদি নিজের খরচা চালাতে অসমর্থ হন, যদি তাঁর নিজের বা নিজের অধিকারে কোনও সম্পত্তি না থাকে এবং তাঁর স্বামীর জমি, বাড়ি ও অন্যান্য সম্পত্তি থেকে বা তাঁর পিতা বা মাতার জমি, বাড়ি ও অন্যান্য সম্পত্তি থেকে খরচ মেটাতে না পারেন।

    হিন্দু বিবাহ আইনে রয়েছে যদি কোনও হিন্দু পুরুষ ব্যভিচারে লিপ্ত থাকেন কিংবা নিজের হিন্দু স্ত্রীকে নির্যাতন করেন কিংবা স্ত্রীর কোনও খোঁজ খবর না রাখেন, অকারণে সহবাস থেকে নিরত থাকেন; উপরন্তু তিনি স্ত্রীর বিরুদ্ধে বিবাহ-বিচ্ছেদের মামলা আনেন কিংবা আইন সম্মত ভাবে আলাদা থাকার দাবী করেন কিংবা সহবাসের অধিকার পুনঃস্থাপনের জন্য দাবী জানান, সেক্ষেত্রে সেই হিন্দু স্ত্রী আদালতের কাছে রিলিফ বা আর্থিক ও সামাজিক প্রতিষ্ঠা দাবী করতে পারেন। অর্থাত্, বৈধ স্বামীর কাছ থেকে খোরপোষের দাবী করে দরখাস্ত করতে পারেন এবং মামলা চালানোর খরচাও দাবী করতে পারেন।

     

    লেখক: বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের আইনজীবী, আইন গ্রন্থ প্রণেতা ও সম্পাদক দৈনিক ‘সময়ের দিগন্ত’।

     
    ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ বাংলাদেশ সময় ১৬:৫৬