সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশনায় পার্লামেন্টের অনাস্থা ভোটে প্রধানমন্ত্রিত্ব হারালেন ইমরান খান

প্রতিবেদক : ল'ইয়ার্স ক্লাব বাংলাদেশ
প্রকাশিত: ১০ এপ্রিল, ২০২২ ৪:৪১ পূর্বাহ্ণ
পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান

শেষমেশ ক্ষমতাচ্যুতই হলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। শনিবার রাতে দেশটির পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ জাতীয় পরিষদের অধিবেশনে তাঁর বিরুদ্ধে আনা বিরোধীদের অনাস্থা প্রস্তাবের ওপর ভোটাভুটি হয়।

অনাস্থা প্রস্তাবের ওপর এ ভোটাভুটিতে ইমরানের বিরুদ্ধে ভোট পড়েছে ১৭৪টি। ৩৪২ আসনের জাতীয় পরিষদে প্রস্তাবটি পাসের জন্য দরকার ছিল ১৭২ ভোট।

অনাস্থা ভোট শুরু হওয়ার কয়েক মিনিট আগে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশনায় পদত্যাগ করেন পাকিস্তানের পার্লামেন্টের স্পিকার আসাদ কায়সার ও ডেপুটি স্পিকার কাশিম সুরি। ফলে অনাস্থা ভোট পরিচালনার দায়িত্ব পড়ে প্যানেল স্পিকার পিএমএল (এন) নেতা আয়াজ সাদিকের ওপর।

সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশনা অনুযায়ী শনিবার (০৯ এপ্রিল) মধ্যরাত ১২টায় শেষ হয় ইমরান খানের ওপর আনাস্থা ভোটগ্রহণের সময়। কায়সার শনিবার সকাল থেকে পার্লামেন্টের অধিবেশনটি পরিচালনা করছিলেন। তবে সেটি প্রথমে ইমরান ও তার মন্ত্রীদের অনুপস্থিতির কারণে মুলতবী করা হয়। পরে ইফতার ও এশার নামাজের কারণে ফের মুলতবী করা হয়।

এরপর পাক প্রধানমন্ত্রী বাসভবনের নিয়ন্ত্রণ নেয় পাক আর্মির ত্রিপল ওয়ান ইনফন্ট্রি ব্রিগেড। আকাশে ওড়ানো হয় সামরিক হেলিকপ্টার। উচ্চ সতর্ক অবস্থান নিতে বলা হয় সেনাদেরও। আবার ইসলামাবাদের সড়কে নামানো হয় ট্যাংক।

এ অবস্থার মধ্যে প্রধান বিচারপতি মধ্যরাতেও আদালত খোলা রাখার নির্দেশনা দেন। বলেন, অনাস্থা ভোটগ্রহণ না হলে সেটা হবে আদালত অবমাননা।

গত রোববার ইমরানের ওপর আনা অনাস্থা প্রস্তাবকে অসাংবিধানিক আখ্যা দিয়ে তা বাতিল করেছিলেন পার্লামেন্টের ডেপুটি স্পিকার কাসিম সুরি। এরপর পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট ইমরান খানের আহ্বানে সাড়া দিয়ে তার আইন সভা ভেঙে দিয়েছিলেন। কিন্তু দেশটির সুপ্রিম কোর্ট সেই সিদ্ধান্তকে অসাংবিধানিক ঘোষণা করে আইনসভাকে পুনরুজ্জীবিত করার রায় দেন এবং একই সঙ্গে শনিবার (০৯ এপ্রিল) অনাস্থা প্রস্তাবের ওপর ভোট গ্রহণের দিন নির্ধারণ করে দেন।

সেই নির্দেশনা অনুযায়ী অধিবেশন বসলেও তা নাটকীয়তার মধ্য দিয়ে মুলতবী করা হয়। পরবর্তীতে প্রধান বিচারপতি ও আর্মির চাপে পড়ে অনাস্থা ভোটেই যেতে হয় ইমরান খানকে।