ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন পূরণে এগিয়ে যাচ্ছে বিচার বিভাগও: প্রধান বিচারপতি

প্রতিবেদক : বার্তা কক্ষ
প্রকাশিত: ১৯ নভেম্বর, ২০১৯ ১০:৩০ অপরাহ্ণ

প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন বলেছেন, ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন পূরণে এগিয়ে যাচ্ছে রাষ্ট্রের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ বিচার বিভাগও। তথ্য প্রযুক্তির বিকাশে বদলে যাচ্ছে বিচার বিভাগের কাজের ধরন। কাজের গতিও বেড়েছে। বেড়েছে মামলা নিষ্পত্তির হারও।

সুপ্রিম কোর্টের বিভিন্ন আলোচিত মামলায় দেওয়া রায়, আদেশ বা সিদ্ধান্ত ও বিভিন্ন আইন সংক্রান্ত অন্যান্য বিষয়াদী অন্তর্ভূক্ত করে ল’ চেম্বার ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম(এলসিএমএস) নামে একটি ওয়েবসাইট ভিত্তিক সফটওয়্যারের আপডেট ভার্সন উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন প্রধান বিচারপতি।

বুধবার সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি ভবনের শহীদ শফিউর রহমান মিলনায়তনে ছিদ্দিক এন্টারপ্রাইজ লিমিটেডের আয়োজনে এ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি সিনিয়র আইনজীবী এএম আমিন উদ্দিন। সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক ব্যারিস্টার এ.এম. মাহবুব উদ্দিন খোকনের উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী অ্যাডভোকেট শ.ম রেজাউল করীম এমপি।

প্রধান বিচারপতি বলেন, প্রযুক্তির ব্যবহার অগ্রাহ্য করার সুযোগ নেই। প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে স্বল্প সময়ে স্বল্প খরচে নিখুঁতভাবে কাজ করা যায়। এ লক্ষ্যে ডিজিটালাইজেশনের দিকে দৃঢ় প্রত্যয়ে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। তিনি আরও বলেন, ইতিমধ্যেই সরকার ই-জুডিশিয়ারির প্রকল্প হাতে নিয়েছে। বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট এ বিষয়ে কাজ করে যাচ্ছে।

প্রধান বিচারপতি বলেন, ছিদ্দিক এন্টারপ্রইজের ল’ চেম্বার ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম(এলসিএমএস) আইনজীবীদের পেশাগত কাজে গতি আনবে বলে বিশ্বাস করি। এই উদ্যোগ সময়োপযোগী পদক্ষেপ। এই সফটওয়্যারটি ব্যবহার করে আইনজীবীরা সঠিকভাবে তাদের চেম্বার ব্যবস্থাপনা করতে সক্ষম হবেন। এই পদ্ধতি উচ্চ আদালতে মামলা ব্যবস্থাপনায় বিচারক ও আইনজীবীদের কাজকে সহজতর করবে।

শ ম রেজাউল করিম বলেন, একটি দেশের বিচার ব্যবস্থা সেই দেশের অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের মানদন্ডের মাপকাঠি। বিশ্বের অনেক দেশের বিচার ব্যবস্থার চেয়ে আমাদের দেশের বিচার ব্যবস্থা অনেক অনেক উন্নত। আমাদের বিচার বিভাগ যাতে প্রশ্নবিদ্ধ না হয় সেজন্য সকলেরই একসঙ্গে কাজ করা দরকার।

তিনি বলেন, বিচার বিভাগের সমালোচনা করা যাবে, তবে সেটা হতে হবে গঠনমূলক। ঢালাওভাবে নয়। কিন্তু দেখা যায়, কেউ কেউ রায় পক্ষে গেলে স্বাগত জানাই। আর বিপক্ষে গেলে বলা হয়, আজ্ঞাবহ রায় দেওয়া হয়েছে। আমাদের এই ধারণা ও প্রবনতা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। শেষ আশ্রয়স্থল এই উচ্চ আদালত। সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্টের প্রতি যদি মানুষের আস্থা নষ্ট হয়ে যায় তবে এই ক্ষতি আমার-আপনার সকলের।

উল্লেখ্য, ছিদ্দিক এন্টারপ্রাইজ প্রায় দীর্ঘ ১৫ বছর ধরে আইনাঙ্গনে আধুনিকায়নের মাধ্যমে বিভিন্ন সেবা দিয়ে আসছে। তারই ধারাবাহিকতায় দীর্ঘদিনের প্রচেষ্টায় সারাদেশের আইনজীবীদের উচ্চ ও নিম্ন আদালতের মামলা এবং চেম্বার ব্যবস্থাপনা অত্যন্ত সহজ ও চমৎকারভাবে পরিচালনার জন্য অত্যাধুনিক সফটওয়্যারটি তৈরি করা হয়েছে।