হলি আর্টিজান: বিষাদের এক কালো অধ্যায়

প্রতিবেদক : বার্তা কক্ষ
প্রকাশিত: ৪ জুলাই, ২০২০ ১:৫৮ অপরাহ্ণ
মনিরা নাজমী জাহান

মনিরা নাজমী জাহান:

২০১৬ সালের সালের ১ জুলাই। বাংলাদেশের ইতিহাসে এসেছিল এমন এক রাত। যে রাতটি ছিল বিভীষিকার, আতংকের এবং ভয়ের।গুটি কয়েক জঙ্গি মতবাদে বিশ্বাসী সশস্ত্র তরুণের জঙ্গি আক্রমণের ফলে এক রাতেই বদলে দিয়েছিল গোটা বাংলাদেশের আর্থ সামাজিক-রাজনৈতিক চিত্র। ভয়াবহ ও নিন্দনীয় জঙ্গি হামলার ঘটনাটি বাংলাদেশের এমন এক যায়গায় ঘটেছিল যে জায়গা পরিচিত ছিল অভিজাত কূটনীতিক পাড়া হিসেবে। সেই রাতে হলি আর্টিজান বেকারিতে জাপান, ইতালি ও ভারতের ১৭ জন নাগরিককে নারকীয়ভাবে হত্যা করা হয়েছিল। দুইজন পুলিশ কর্মকর্তাসহ বাংলাদেশের কয়েকজন মানুষকেও প্রাণ দিতে হয়েছিল ওই হামলাকারী জঙ্গি-সন্ত্রাসীদের হাতে।

এই ধরনের নাটকীয় এবং নরকীয় হামলা যে  বাংলাদেশে হতে পারে তা হয়ত হলি আর্টিজান হামলার পূর্বে বাংলাদেশের মানুষের কল্পনা তেও ছিল না। বরং সন্ত্রাসীরা কোনো রেস্টুরেন্ট কিংবা ব্যাংকে ঢুকে অস্ত্রের মুখে সবাইকে জিম্মি করে ফেলে, সিনেমা-নাটকেই এ ধরণের দৃশ্য দেখে অভ্যস্ত ছিল বাঙ্গালী জাতি। কিন্তু এই ধরণের নাটকীয় হামলা যে কতটা ভয়াবহ হতে পারে তার বাস্তব চিত্র দেখা গেছে গুলশানের হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় জঙ্গি হামলায়। ২০১৬ সালের ১ জুলাই ঘটে যাওয়া ওই হামলার পর আতঙ্ক ও শোকে স্তব্ধ হয়ে যায় গোটা জাতি।জাতির উপর নেমে আসে কালো বিষাদের ছায়া।

তবে যে প্রশ্নটি প্রথম মাথায় আসে তা হল,হলি আর্টিজান হামলার পিছনে আসলে কি উদ্দেশ্য ছিল ? দুই বছরের বেশি সময় ধরে তদন্তের পর পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের পরিদর্শক হুমায়ুন কবির ২০১৮ সালের ২৩ জুলাই ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে এ মামলার অভিযোগপত্র দেন।সেখানে বলা হয়, হলি আর্টিজানে হামলার পেছনে মূলত তিনটি উদ্দেশ্য ছিল জঙ্গিদের। ১. কূটনৈতিক এলাকায় হামলা করে নিজেদের সামর্থ্যের জানান দেওয়া; ২. বিদেশি নাগরিকদের হত্যা করে নৃশংসতার প্রকাশ ঘটানো এবং ৩. দেশে বিদেশে গণমাধ্যমে ব্যাপক প্রচার পাওয়া এবং বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করা।

মাননীয় আদালত তার রায়ের পর্যবেক্ষণে বলেন, বাংলাদেশ তথাকথিত জিহাদ কায়েমের লক্ষ্যে জননিরাপত্তা বিপন্ন করার এবং আন্তর্জাতিক জঙ্গী সংগঠন আইএস এর দৃষ্টি আকর্ষণ করার জন্য জেএমবির একাংশ নিয়ে গঠিত নব্য জেএমবির সদস্যরা গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে নারকীয় ও দানবীয় হত্যাকাণ্ড ঘটায়।

হলি আর্টিজান হামলার পরে দ্বিতীয় যে প্রশ্নটি ব্যপক হারে উচ্চারিত হচ্ছে তা হল, যারা জঙ্গিবাদে উৎসাহিত হচ্ছে বা জঙ্গিবাদে সম্পৃক্ত হচ্ছে তারা আসলে কোন প্রক্রিয়ার বা কিভাবে হচ্ছে ?এই প্রশ্নের উত্তরে অপরাধ বিজ্ঞানীরা কোন সুনির্দিষ্ট ফর্মুলা বা  ব্লু প্রিন্ট দিতে পারেন নি। তবে মোটা দাগে পুরো প্রক্রিয়াতে ৩ টি ধাপের অস্তিত্ব পাওয়া যায়। প্রথম ধাপে একজন মানুষের প্রচলিত সামাজিক ব্যবস্থায় প্রতি এক ধরনের হতাশা, ক্ষোভের জন্ম নেয়। তিনি নিজেকে বঞ্চনার স্বীকার বলে মনে করতে থাকেন এবং সেই পরিস্থিতি থেকে তিনি  স্বপ্ন দেখতে থাকেন এক পরিবর্তিত সমাজ ব্যবস্থার।দ্বিতীয় ধাপে তিনি সুনির্দিষ্ট মতবাদ বা মতাদর্শ গ্রহন করেন । তিনি বিশ্বাস করতে থাকেন এই মতবাদ বা মতাদর্শ বাস্তবায়ন করতে পারলে তিনি যে বঞ্ছনার স্বীকার তা দুর হয়ে যাবে। তিনি যে সমাজ প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন দেখেন তা এই মতবাদ বাস্তবায়নের মাধ্যমেই সম্ভব।তখন তিনি এই মতাদর্শ দ্বারা গভীরভাবে উদ্বুদ্ধ ও অনুপ্রানিত হতে  থাকেন।সর্বশেষ স্তরে যে বিষয়টি ঘটে তা হচ্ছে তিনি খুঁজে বের করেন তার সেই উদ্বুদ্ধ হওয়া মতবাদের অনুসারীর অন্যান্য মানুষদের। তিনি সেই মতবাদের অন্যান্য মানুষদের সাথে সখ্যতা গড়ে তলার মাধ্যমে তাদের দলে যোগদান করেন।

হলি আর্টিজান হামলার পরে  তৃতীয় যে প্রশ্নটি মানুষের মনে উদ্রেক হয়েছে তা হল ঠিক কারা জঙ্গিবাদে উদ্বুদ্ধ হয় ? কারন হলি আর্টিজান হামলার আগে সবাই ভাবতো হয়ত মাদ্রাসা পড়ুয়া বা অর্থনৈতিক ভাবে অসচ্ছল পরিবারের সদস্যরা জঙ্গি হয়। কিন্তু হলি আর্টিজান হামলা সব হিসাব ওলট পালট করে দেখিয়েছে ইংলিশ মিডিয়ামে পড়ুয়া , নামকরা বেসরকারি বিশ্ব বিদ্যালয়ের সচ্ছল পরিবারের ছেলেরা জঙ্গিবাদে উদ্বুদ্ধ হয়েছে।অপরাধ বিজ্ঞানীরা এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গিয়েও বেশ হিম শিম খেয়েছেন। কারন সুনির্দিষ্ট ভাবে বলা কঠিন যে ঠিক কোন গোত্র ধর্ম বর্ণের লোক জঙ্গিবাদে উদ্বুদ্ধ হবে।নিবরাসের মত উদার মনা পাশ্চাত্য শিক্ষায় বিশ্বাসী ছেলের যেমন জঙ্গিবাদের সম্পৃক্ত হবার ইতিহাস আছে ঠিক তেমনি আছে রিচার্ড রেইড নামক অল্প শিক্ষিত ও অর্থনৈতিক ভাবে অসচ্ছল  ব্রিটিশ যুবকের জঙ্গিবাদে সম্পৃক্ত হয়ে যাবার ইতিহাস যে কিনা ২০০১ সালে আমেরিকান এয়ারলাইনসের প্যারিস থেকে মিয়ামিগামী একটি বিমানে আগুন লাগাবার চেষ্টা করেছিল অথবা রয়েছে নিদাল মালিক হাসান নামক যুক্তরাষ্ট্র সেনাবাহিনীর মেজরের জঙ্গিবাদে সম্পৃক্ততার ইতিহাস।যিনি ২০০৯ সালের ৫ই নভেম্বর একাই খুন করেছেন ১৩ জন মানুষকে এবং মারাত্মক ভাবে আহত করেন ৩০জন মানুষকে। তাই এই কথা নির্দ্বিধায় বলা যায় যে কোন কোন গোত্র ধর্ম বর্ণের লোক জঙ্গিবাদে উদ্বুদ্ধ হতে পারে।

তবে আশার কথা হচ্ছে, এই হলি আর্টিজান হামলার পরে বাংলাদেশের আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সাহসী তৎপরতার কারনে সমাজ থেকে  সমূলে জঙ্গিবাদ নির্মূল করা সম্ভব হয়েছে এবং বাংলাদেশ দ্রুততম সময়ে হলি আর্টিজান হামলার বিচার করে বিশ্বে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিশ্চিত করেছে।

পরিশেষে বলা যায় হলি আর্টিজানের কলঙ্কজনক এ হামলার মাধ্যমে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের চরিত্র হরণের চেষ্টা করা হয়েছে বটে কিন্তু চক্রান্তকারীরা সফল হতে পারেনি। কারন  বাংলাদেশের অধিকাংশ মানুষ ধর্মপ্রাণ ও শান্তিপ্রিয়।তাই  তাদেরকে ধর্মের অপব্যাখ্যা বা জঙ্গিবাদের উন্মাদনা বিপদগামী করতে পারেনি। বরং বাঙ্গালী জাতি কাঁধে কাঁধ  মিলিয়ে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে লড়াই করে পরাজিত করেছে জঙ্গিবাদের কালোহাতকে।

মনিরা নাজমী জাহান: শিক্ষক; আইন বিভাগ , ইস্টওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়