আপিল বিভাগের বিচারপতি হলেন আপন দুই ভাই

প্রতিবেদক : বার্তা কক্ষ
প্রকাশিত: ৯ অক্টোবর, ২০১৮ ১২:০৯ অপরাহ্ণ
বিচারপতি আবু বকর সিদ্দিকী ও বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী

সুপ্রিম কোর্টের ইতিহাসে প্রথমবারের মত আপন দুই ভাই একসাথে আপিল বিভাগের বিচারক হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। এরা হলেন- বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী ও বিচারপতি আবু বকর সিদ্দিকী।

ছোট ভাই বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী আগেই নিয়োগ পেয়েছেন। আর বড় ভাই বিচারপতি আবু বকর সিদ্দিকী নিয়োগ পেয়েছেন সোমবার (৯ অক্টোবর)।

১৯৫৬ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর কুষ্টিয়ায় জন্মগ্রহণ করা বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী ১৯৭২ সালে খোকসা জানিপুর পাইলট হাইস্কুল থেকে এসএসসি পাশ করেন। আইএসসি পাশ করেন ১৯৭৪ সালে সাতক্ষীরার সরকারী পিসি কলেজ থেকে। বিএ পাশ করেন সাতক্ষীরা সরকারী কলেজ থেকে। এমএ পাশ করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ থেকে। এলএলবি পাশ করেন ধানমন্ডী ‘ল’ কলেজ থেকে। ১৯৮১ সালে ঢাকা জজ কোর্টে আইন পেশায় যোগদান করেন। ১৯৮৩ সালে হাইকোর্ট বিভাগে এবং ১৯৯৯ সালে আপিল বিভাগের আইনজীবী হিসেবে সংযুক্ত হন।

২০০১ সালে হাইকোর্টে অতিরিক্ত বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ পান। ২০০৯ সালে হাইকোর্ট ডিভিশনে স্থায়ী বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ পান। ২০১৩ সালে তিনি আপিল বিভাগে নিয়োগ পান। একইসঙ্গে তিনি ২০১৫ সাল থেকে বাংলাদেশ জুডিশিয়াল সার্ভিস কমিশনের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছেন।

বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর রয়েছে বর্নাঢ্য জীবন। তিনি আইন পেশায় থাকাকালীন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে ও খুলনা সিটি কপোর্টরেশনের আইন উপদেষ্টা ছিলেন। হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী কিছুদিন ঢাকার ‘ল’ কলেজের শিক্ষকতা করেন। এছাড়া তিনি অতিরিক্ত অ্যার্টনি জেনারেল হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। তিনি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের প্রধান আইন উপদেষ্টা ছিলেন।

অন্যদিকে, বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর আপন বড় ভাই সদ্য আপিল বিভাগে নিয়োগপ্রাপ্ত বিচারপতি আবু বকর সিদ্দিকী ১৯৫৪ সালের ২৯ জুলাই জন্মগ্রহণ করেন। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইনের ডিগ্রি নেওয়ার পর ১৯৭৯ সালে কুষ্টিয়া বারে আইনজীবী হিসাবে তালিকাভুক্ত হন। পরের বছর মুন্সেফ হিসেবে বিচার বিভাগের চাকরিতে যোগ দেন এবং ১৯৯৭ সালে জেলা ও দায়রা জজ হন। এর এক যুগ পর তিনি ডাক পান হাইকোর্টে।

বিচারপতি আবু বকর সিদ্দিকী ২০০৯ সালের ৩০ জুন হাইকোর্টে অস্থায়ী বিচারক হিসাবে নিয়োগ পান এবং দুই বছরের মাথায় স্থায়ী হন। সুপ্রিম কোর্টের ওয়েবসাইটে হাইকোর্ট বিভাগের বিচারকদের তালিকায় তিনি ২৫তম ক্রমে ছিলেন। গতকাল আপিল বিভাগে নিয়োগ পাওয়ার পর আজ তিনি শপথ নিয়েছেন।