ধর্ষণ ও শাস্তি, পরবর্তীতে আইনি লড়াই এবং কিছু কথা

প্রতিবেদক : বার্তা কক্ষ
প্রকাশিত: ১৫ জুন, ২০২০ ১১:৩৪ অপরাহ্ণ
রেবিনা রিফাই সারা, অ্যাডভোকেট

রেবিনা রিফাই সারা :

দন্ডবিধি আইনের ৩৭৫ ধারা মোতাবেক নিম্নলিখিত পাঁচটির যে কোন অবস্থায় পুরুষ লোক কোন নারী বা স্ত্রী লোকের সহিত যৌন সহবাস করলে সে ধর্ষণ করেছে বলে গণ্য হবে- ১. স্ত্রী লোকটির ইচ্ছার বিরুদ্ধে, ২. স্ত্রী লোকটির সম্মতি ব্যতীত, ৩. স্ত্রী লোকটির সম্মতি ক্রমেই, কিন্তু মৃত্যুর বা জখমের ভয় ভীতি দেখিয়ে সম্মতি আদায় করা হলে, ৪. স্ত্রী লোকটির সম্মতি ক্রমেই,কিন্তু পুরুষ টি জানে যে সে স্ত্রী লোকটির স্বামী নয়। স্ত্রী লোকটি জানে পুরুষ টি তার স্বামী, এ ভেবে স্ত্রী লোকটি ভূল করলে, ৫. স্ত্রী লোকটির সম্মতি ক্রমেই কিংবা সম্মতি ব্যতীত যদি স্ত্রী লোকটির বয়স ১৪ বছরের কম হয়।

ধর্ষণের শাস্তি:

বাংলাদেশ দণ্ডবিধির ১৮৬০ আইনের ৩৭৬ ধারায় বলা হয়েছে, ‘যদি কোনো ব্যক্তি ধর্ষণের অপরাধ করে তবে সে ব্যক্তি যাবজ্জীবন কারাদণ্ডে অথবা দশ বছর পর্যন্ত যেকোন মেয়াদে সশ্রম বা বিনাশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত হবে এবং জরিমানা দণ্ডেও দণ্ডিত হবে।’

দণ্ডবিধি অনুসারে ধর্ষণ এমন একটি অপরাধ যা আমলযোগ্য কিন্তু জামিনযোগ্য নয়। এমনকি এটি মীমাংসারযোগ্যও নয়।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ( ২০০০ সনের ৮ নং আইন ) ধর্ষণ, ধর্ষণজনিত কারণে মৃত্যু, ইত্যাদির শাস্তি সম্পর্কে বলা আছে-

৯৷ (১) যদি কোন পুরুষ কোন নারী বা শিশুকে ধর্ষণ করেন, তাহা হইলে তিনি যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডনীয় হইবেন এবং ইহার অতিরিক্ত অর্থদণ্ডেও দণ্ডনীয় হইবেন৷

ব্যাখ্যা৷- যদি কোন পুরুষ বিবাহ বন্ধন ব্যতীত ১[ ষোল বত্সরের] অধিক বয়সের কোন নারীর সহিত তাহার সম্মতি ব্যতিরেকে বা ভীতি প্রদর্শন বা প্রতারণামূলকভাবে তাহার সম্মতি আদায় করিয়া, অথবা ২[ ষোল বত্সরের] কম বয়সের কোন নারীর সহিত তাহার সম্মতিসহ বা সম্মতি ব্যতিরেকে যৌন সঙ্গম করেন, তাহা হইলে তিনি উক্ত নারীকে ধর্ষণ করিয়াছেন বলিয়া গণ্য হইবেন৷

(২) যদি কোন ব্যক্তি কর্তৃক ধর্ষণ বা উক্ত ধর্ষণ পরবর্তী তাহার অন্যবিধ কার্যকলাপের ফলে ধর্ষিতা নারী বা শিশুর মৃত্যু ঘটে, তাহা হইলে উক্ত ব্যক্তি মৃত্যুদণ্ডে বা যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডনীয় হইবেন এবং ইহার অতিরিক্ত অন্যুন এক লক্ষ টাকা অর্থদণ্ডেও দণ্ডনীয় হইবেন৷

(৩) যদি একাধিক ব্যক্তি দলবদ্ধভাবে কোন নারী বা শিশুকে ধর্ষন করেন এবং ধর্ষণের ফলে উক্ত নারী বা শিশুর মৃত্যু ঘটে বা তিনি আহত হন, তাহা হইলে ঐ দলের প্রত্যেক ব্যক্তি মৃত্যুদণ্ডে বা যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডনীয় হইবেন এবং ইহার অতিরিক্ত অন্যুন এক লক্ষ টাকা অর্থদণ্ডেও দণ্ডনীয় হইবেন৷

(৪) যদি কোন ব্যক্তি কোন নারী বা শিশুকে-

(ক) ধর্ষণ করিয়া মৃত্যু ঘটানোর বা আহত করার চেষ্টা করেন, তাহা হইলে উক্ত ব্যক্তি যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডনীয় হইবেন এবং ইহার অতিরিক্ত অর্থদণ্ডেও দণ্ডনীয় হইবেন;

(খ) ধর্ষণের চেষ্টা করেন, তাহা হইলে উক্ত ব্যক্তি অনধিক দশ বত্সর কিন্তু অন্যুন পাঁচ বত্সর সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডনীয় হইবেন এবং ইহার অতিরিক্ত অর্থদণ্ডেও দণ্ডনীয় হইবেন৷

(৫) যদি পুলিশ হেফাজতে থাকাকালীন সময়ে কোন নারী ধর্ষিতা হন, তাহা হইলে যাহাদের হেফাজতে থাকাকালীন উক্তরূপ ধর্ষণ সংঘটিত হইয়াছে, সেই ব্যক্তি বা ব্যক্তিগণ ধর্ষিতা নারীর হেফাজতের জন্য সরাসরিভাবে দায়ী ছিলেন, তিনি বা তাহারা প্রত্যেকে, ভিন্নরূপ প্রমাণিত না হইলে, হেফাজতের ব্যর্থতার জন্য, অনধিক দশ বত্সর কিন্তু অন্যুন পাঁচ বত্সর সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডনীয় হইবেন এবং ইহার অতিরিক্ত অন্যুন দশ হাজার টাকা অর্থদণ্ডেও দণ্ডনীয় হইবেন৷

পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে ধর্ষনের সাজা-

  • আমেরিকা: ধর্ষিতার বয়স ও ধর্ষনের মাত্রা দেখে ৩০ বছর পর্যন্ত কারাদন্ড
  • রাশিয়া: ২০ বছর সশ্রম কারাদন্ড
  • চীন: কোনো ট্রায়াল নেই, মেডিকেল পরীক্ষার পর মৃত্যুদন্ড
  • পোল্যান্ড: হিংস্র বুনো শুয়োরের খাঁচায় ফেলে মৃত্যুদন্ড
  • মধ্যপ্রাচ্য আরব দুনিয়া: শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করা পর্যন্ত পাথর ছুড়ে মৃত্যু, ফাঁসি, হাত পা কাটা, যৌনাঙ্গ কেটে অতি দ্রুততার সাথে মৃত্যুদন্ড দেওয়া
  • সৌদি আরব: শুক্রবার জুম্মা শেষে জনসম্মক্ষে শিরচ্ছেদ!
  • দক্ষিন আফ্রিকা: ২০ বছরের কারাদন্ড
  • মঙ্গোলিয়া: ধর্ষিতার পরিবারের হাত দিয়ে মৃত্যুদন্ড দিয়ে প্রতিশোধ পুরণ
  • নেদারল্যান্ড: ভিন্ন ভিন্ন সাজা
  • আফগানিস্তান: ৪ দিনের ভিতর গুলি করে হত্যা
  • মালয়শিয়া: মৃত্যুদন্ড।

ধর্ষিত হলে প্রাথমিকভাবে কি করণীয়?

ধর্ষণ একটি জঘন্য অপরাধ। তারপরও সমাজে এই অপরাধ বেড়েই চলেছে। তাই এ সম্পর্কে আমাদের সচেতন থাকা জরুরি। আপনার পরিচিতি বা প্রতিবেশী কেউ যদি ধর্ষণের শিকার হন তখন আপনি কী করবেন? এই করণীয় ঠিক না থাকার কারণে অনেক সময় আইনি লড়াই করা কঠিন হয়ে পড়ে। তাই একজন সচেতন নাগরিক, প্রতিবেশী, সবচেয়ে বড় কথা একজন মানুষ হিসেবে করণীয়টি জেনে রাখুন এবং ধর্ষিতাকে সাহায্য করুন। প্রশ্ন আসতেই পারে আপনি কী সাহায্য করবেন? নিচে দেওয়া হলো কীভাবে আপনি সহায়তা করতে পারবেন সেই উপায়গুলো-

  • ধর্ষণের ঘটনাটি নির্ভরযোগ্য কাউকে জানান যিনি নির্যাতিতাকে মানসিক সাহস দিতে পারবেন।
  • সাক্ষী হিসেবে কাজে লাগানো যায় এমন কোনো বিশ্বস্ত মানুষকে জানান সে আত্মীয়, বন্ধু, পুলিশ, চিকিৎসকও হতে পারেন
  • ৩/৭২ ঘণ্টার মধ্যে ডাক্তারি পরীক্ষা করিয়ে ফেলতে হবে।
  • কোনোভাবেই নির্যাতিতাকে গোসল করে আলামত নষ্ট করতে দেবেন না। তাতে শারীরিক আলামতগুলো নষ্ট হয়ে যায়। এমনকি পরনের কাপড়ও পরিষ্কার করা যাবে না। কাপড়গুলো পলিথিনে রাখা যাবে না বরং সেগুলো কাগজের ব্যাগে বা কাগজে মুড়িয়ে থানায় নিয়ে যেতে হবে।
  • সবচেয়ে দ্রুত যে কাজটি করতে হবে তা হলো নিকটস্থ থানায় যোগাযোগ করে অভিযোগ জানাতে হবে। অভিযোগ যে কেউ করতে পারেন।
  • যিনি ধর্ষণের শিকার হয়েছেন তিনিই মামলার প্রধান সাক্ষী। তাঁর জবানবন্দি পুলিশকে গ্রহণ করতে হবে। তবে কোনো ধরনের অপ্রাসঙ্গিক প্রশ্নের উত্তর দিতে তিনি বাধ্য নন।

অনেকেই ভেবে থাকেন ডাক্তারি পরীক্ষা বা চিকিৎসা অনেক খরচের ব্যাপার। কিন্তু সরকারি বা বেসরকারি হাসপাতালে ধর্ষণের শিকার নারী বা শিশুর মেডিকেল পরীক্ষা সম্পূর্ণভাবে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর তত্ত্বাবধানে হবে এবং তা বিনামূল্যে দিতে হবে। পরবর্তী চিকিৎসাও সরকারি হাসপাতালে বিনামূল্যে হবে।

আইনি সহায়তা পাওয়া নিয়ে ভয় পাওয়ার কিছু নেই কারণ :

  • প্রথমেই ভিকটিম পুলিশের কাছ থেকে সব রকম সহায়তা পাওয়ার অধিকারী। জেলা জজের আওতায় প্রতিটি জেলায় আইন সহায়তা কেন্দ্র রয়েছে, যেখানে আবেদন করলে ভিকটিম আর্থিক অথবা আইনজীবীর সহায়তা পেতে পারেন
  • বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠনের কাছে শেল্টার, আইনগত সহায়তা পেতে পারেন
  • থানায় এবং হাসপাতালে ‘ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে’ আইনগত ও চিকিৎসা পেতে পারেন

আরেকটি বিষয়ে সোচ্চার হোন কখনো কোনো ধর্ষণের ঘটনায় আপস-মীমাংসা করা যাবে না। কারণ ধর্ষকের পরিচয় সে একজন ধর্ষক। তার সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড। আজকে আপনি তার সঙ্গে আপস করলে সে কালকেই আরেকজনকে ধর্ষণ করবে। কোনোভাবেই কোনো ধর্ষককে ছেড়ে দেওয়া যাবে না। সে নানা রকম ভয় দেখাতে পারে। কিন্তু মনে রাখবেন সে অপরাধী তার শক্তি কোনোভাবেই আপনার চেয়ে বেশি নয়।

ধর্ষণের মূহুর্তে নিজেকে রক্ষা করার উপায় সমূহ-

  • ভীত হয়ে প্রথমেই গা ছেড়ে না দিয়ে যতটা সম্ভব মাথা ঠান্ডা রাখুন
  • ধাক্কা, থাপ্পড়, আঁচড় না দিয়ে… পারলে নাক বরাবর ঘুষি দিন। হাত মুষ্ঠি ঘুষি নয়, আঙ্গুল প্যারালাল রেখে লম্বালম্বি ঘুষি। এতে সে বেশ কিছুক্ষণের জন্য ব্যালেন্স হারাবে
  • যতটা সম্ভব পুরো সময়টা চিৎকার করুন
  • জোরে তালি দেওয়ার মতো করে দুই হাত দিয়ে একই সাথে তার দুইকানে জোরে থাপ্পড় দিন। এতে সে পুরো ব্যালেন্স হারাবে
  • যখন সে আপনার দুই হাতের উপর হাত রেখে মুখের কাছে মুখ নিয়ে আসবে, তখন কপাল দিয়ে তার মুখে জোরে আঘাত দিন৷ এতে তার দাঁত দিয়েই তার ঠোট ও জিহবা কেটে যাবে
  • কাপড়ে সেফটি পিন থাকলে ঠান্ডা মাথায় সেগুলো গলায় ঢুকিয়ে দিন। অজ্ঞান হয়ে যাবে
  • ধর্ষক যখন উভয়ের কাপড় অপসারণ করবে সুযোগ বুঝে তার অন্ডকোষ বরাবর আপনার হাঁটু দিয়ে কিক করুন। এতে সে লুটিয়ে পড়বে
  • চুলে চিকন ক্লিপ থাকলে সেগুলো একটু কৌশনে গলায় অথবা কানের গোড়ায় ঢুকিয়ে দিন। এতে অজ্ঞান হয়ে যাবে
  • আপনার হাত বেঁধে ফেলার আগেই শেষ অস্ত্র আপনার হাত। দুই হাতের তর্জনী আঙুল ধর্ষকের দুই চোখের গোড়ায় সোজাসুজি প্রেসার দিয়ে ঢুকিয়ে চোখ নষ্ট করে দিন

মনে রাখবেন অন্তত আপনার সম্মানের কাছে পৃথিবীর সব খারাপ অপশক্তিই কিছুই না

ধর্ষণকারীকে রাসায়নিক প্রয়োগে যৌন সক্ষমতা নষ্টের আইন পাস-

ধর্ষণের পরিমাণ আশঙ্কাজনকভাবে বেড়ে যাওয়ায় গতবছর যুক্তরাষ্ট্রে প্রণীত হয়েছে নতুন একটি আইন। নতুন এই আইনে শিশু ধর্ষণকারীকে ইনজেকশন প্রদানের মাধ্যমে সারা জীবনের জন্য যৌনক্ষমতা নষ্ট করে দেয়ার বিধান রাখা হয়েছে।

শিশু ধর্ষণ ঠেকাতে যুক্তরাষ্ট্রের আলাবামা অঙ্গরাজ্যে প্রণীত এ আইনে ১৩ বছরের কম বয়সী শিশুদের ধর্ষণকারীদের ক্ষেত্রে এই বিধান রাখা হয়েছে। প্রণীত এ আইনে উল্লেখ করা হয়, ১৩ বছরের কমবয়সী শিশু ধর্ষণের অভিযোগ প্রমাণ হলে অভিযুক্তকে আমৃত্যু কারাবাসের দণ্ড দেয়া হবে। কিন্তু যদি অভিযুক্ত ব্যক্তি প্যারোলে মুক্তি পায় সেক্ষেত্রে মুক্তির পূর্বে তাকে রাসায়নিক ইনজেকশন প্রদান করে আজীবনের জন্য নপুংসক করে দেয়া হবে। তবে যদি কেউ ইনজেকশন নিতে অস্বীকৃতি জানায় তবে তার প্যারোল বাতিল করে আমৃত্যু কারাবাসের দণ্ড বহাল রাখা হবে।

এছাড়াও আইন প্রণেতারা ধর্ষণকারীদের মানসিক বিকারগ্রস্থ এবং ধর্ষণকে সামাজিক ব্যাধি আখ্যা দিয়ে শিশু ধর্ষণের মতো জঘন্য অপরাধের শাস্তি আমৃত্যু করার পক্ষেই রায় প্রদান করেন। এর আগে ২০১৬ সালের ১৯ অক্টোবর ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্টের স্বাক্ষরিত এক আইনে দেশেটিতে ধর্ষণের শাস্তি হিসেবে রাসায়নিক প্রদানের মাধ্যমে ধর্ষণকারীকে নপুংসক করার বিধান প্রণয়ন করা হয়।

সবশেষে কিছু কথা-

যুক্তরাষ্ট্র ও ইন্দোনেশিয়ার মত ধর্ষণকারীকে রাসায়নিক প্রয়োগে যৌন সক্ষমতা নষ্টের আইন আমাদের দেশেরও পাস করা হোক। ধর্ষক কোন দলের হতে পারেনা, কোন জাতির হতে পারেনা। ধর্ষকের একটাই পরিচয়- সে ধর্ষক, সে মানুষরূপী নরপিশাচ….

মানসিক বিকারগ্রস্ত এইসব পিশাচের লালসার শিকার থেকে নবীন হতে বৃদ্ধ সবাইকে বাঁচাতে আইনকে আরো অনেক বেশি শক্তিশালী করতে হবে। সাক্ষ্য আইনের ১৫৪ ধারার মত ধারাগুলো অবিলম্বে বাতিল করা হোক।

‘ধর্ষক জামিন বা মুক্তি পেতে পারে এমন সব আইন বাতিল করা হোক, না হয় কঠিন থেকে কঠিনতর ভাবে আইনগুলোর বাস্তবায়ন করা হোক।’ আর হ্যাঁ, যেইসব আইনজীবীরা ধর্ষকদের পক্ষে ওকালতি করে তাদের একঘরে করা এখন সময়ের দাবি।

রেবিনা রিফাই সারা : অ্যাডভোকেট, ঢাকা জজ কোর্ট