উচ্চ আদালত

বেসরকারি স্কুল-কলেজের সভাপতি হতে পারবে না শিক্ষকরা: হাইকোর্ট

 

বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের (স্কুল,কলেজ ও মাদ্রাসা) কোনও শিক্ষক সভাপতি পদে নির্বাচিত বা মনোনীত হতে পারবেন না বলে রায় দিয়েছেন হাইকোর্ট।

এ বিষয়ে জারি করা এক রুলের শুনানি শেষে আজ বুধবার (৯ মে) বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি মো. বদরুজ্জামানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় ঘোষণা করেন।

এসময় আদালতে ছিলেন রিটকারী আইনজীবী অ্যাডভোকেট মো. হুমায়ুন কবির।

পরে মো. হুমায়ুন কবির সাংবাদিকদের বলেন, ‘মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড দিনাজপুর (মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গভর্নিং বডি ও ম্যানেজিং কমিটি) প্রবিধানমালা, ২০০৯ এর ৭ (২)-তে বলা আছে, কোনও শিক্ষক বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সভাপতি পদে নির্বাচিত বা মনোনীত হতে পারবেন না। এ কারণে আদালত কোনও শিক্ষক বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সভাপতি পদে নির্বাচিত বা মনোনীত হতে পারবেন না বলে রায় দিয়েছেন।’

মামলার বিবরণী থেকে জানা যায়, গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের ঝিনিয়া এমএ হাইস্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি নির্বাচিত হন এবিএম আনিছুর রহমান। তিনি একই উপজেলার একটি বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক। পরে তার সভাপতি পদের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট দায়ের করেন মো. বাদশা মিয়া নামে এক শিক্ষার্থীর অভিভাবক।

এরপর গত ১৫ অক্টোবর রিটের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে বেসরকারি স্কুল-কলেজের সভাপতি পদে শিক্ষকদের নির্বাচিত বা মনোনীত করার বৈধতার প্রশ্নে নিয়ে রুল জারি করেন আদালত। সেই রুলের শুনানি শেষে আদালত বুধবার (৯ মে) রায় ঘোষণা করেন।