সম্পাদক পরিষদকে বিনামূল্যে আইনি সহায়তা দেবে সুপ্রিম কোর্ট বার

প্রতিবেদক : বার্তা কক্ষ
প্রকাশিত: ১৬ অক্টোবর, ২০১৮ ৩:৪৫ অপরাহ্ণ
সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সংবাদ সম্মেলন (ফাইল ছবি)

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের নিবর্তনমূলক ধারাগুলো চ্যালেঞ্জ করে সম্পাদক পরিষদ হাইকোর্টে এলে তাদের বিনা ফি’তে আইনি সহায়তা দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন।

একইসঙ্গে সদ্য পাস হওয়া ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে সম্পাদক পরিষদের সাত দফা দাবির প্রতি সমর্থন দিয়েছে বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট আইনজীবী সমিতি।

আজ মঙ্গলবার (১৬ অক্টোবর) সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন প্রণয়ন প্রসঙ্গে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি এ সম্মেলনের আয়োজন করে।

সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে জয়নুল আবেদীন বলেন, ‘সদ্য পাস হওয়া ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ৮, ২১, ২৫, ২৮, ২৯, ৩১, ৩২, ৪৩ ও ৫৩ ধারাসহ দেশ ও গণতন্ত্র, সংবাদপত্রের স্বাধীনতা এবং মানুষের সাংবিধানিক অধিকার রক্ষার লক্ষ্যে এই আইনের নিবর্তনমূলক সব ধারা অনতিবিলম্বে বাতিলের জোর দাবি জানাচ্ছি।

আইনটির বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে জয়নুল আবেদীন বলেন, ‘এই আইনের ব্যাপারে শুধু সাংবাদিক সমাজই নয়, আইনজীবীসহ অন্যান্য শ্রেণি-পেশা এবং সাধারণ মানুষসহ প্রায় সবাই ক্ষোভ ও উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। তাই আমরা দেশ ও গণতন্ত্র, সংবাদপত্রের স্বাধীনতা এবং মানুষের সাংবিধানিক অধিকার রক্ষার লক্ষ্যে এই আইনের নিবর্তনমূলক ধারা অনতিবিলম্বে বাতিলের জোর দাবি করছি।’

সম্পাদক পরিষদের সাতটি দাবির সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির এই সভাপতি বলেন, ‘বর্তমানে পাস হওয়া ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন পূর্বের ৫৭ ধারার চেয়েও উদ্বেগজনক। বর্তমান আইনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে অপরিসীম। হরণ করা হয়েছে সংবিধান প্রদত্ত অনুচ্ছেদ ৩৯(১) এবং ৩৯(২)-এর সকল অধিকার। তাই আমরা সম্পাদক পরিষদের সাত দফা দাবির প্রতি সমর্থন জানাচ্ছি।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি অতীতে দেশে আইনের শাসন, গণতন্ত্র, মানবাধিকার ও বিচার ব্যবস্থা সমুন্নত রাখায় ভূমিকা রেখে আসছে এবং ভবিষ্যতেও রাখবে। অতি সম্প্রতি বিভিন্ন মহলের ব্যাপক আপত্তি ও মতামত উপেক্ষা করে পাস হওয়া ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে তীব্র ক্ষোভ ও অসন্তোষ বিরাজ করছে। এই আইন নিয়ে জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে। দিন দিন সব মহলের মধ্যে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা দেখা দিয়েছে।’

জাতীয় সংসদে সদ্য পাস হওয়া ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনটি সংবাদ মাধ্যমের স্বাধীনতার প্রতি বাস্তবে হুমকি বলেও মনে করেন তিনি।

সমিতির সম্পাদক ব্যারিস্টার এএম মাহবুব উদ্দিন খোকনের সঞ্চালনায় সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন সমিতির সহ-সভাপতি গোলাম মোস্তফা, গোলাম রহমান ভূঁইয়া, কোষাধ্যক্ষ নাসরিন আক্তার, সিনিয়র সহ-সম্পাদক কাজী মো. জয়নুল আবেদীন, সদস্য মাহফুজ বিন ইউসুফ, ব্যারিস্টার শফিউল আলম মাহবুব, আহসান উল্লাহ, মেহেদী হাসান, ব্যারিস্টার একেএম এহসানুর রহমানসহ বিএনপি সমর্থিত আইনজীবীরা।

এদিকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ৯টি ধারা সংশোধন চেয়ে আইনি নোটিশ পাঠিয়েছেন সুপ্রীম কোর্টের এক আইনজীবী।

৩০ দিনের মধ্যে ধারাগুলো সংশোধনের উদ্যোগ নিতে তথ্যমন্ত্রী, আইনমন্ত্রী, মন্ত্রিপরিষদ সচিব, তথ্য সচিব, আইন সচিবের কাছে এ নোটিশ পাঠান আইনজীবী জুলফিকার আলী জুনু।