রাত পোহালেই চট্টগ্রাম আইনজীবী সমিতির নির্বাচন

প্রতিবেদক : বার্তা কক্ষ
প্রকাশিত: ৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ৫:১১ অপরাহ্ণ
চট্টগ্রাম আইনজীবী সমিতি

দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম আইনজীবী সমিতি ও চট্টগ্রামে পেশাজীবীদের বৃহৎ সংগঠন জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচন আগামীকাল সোমবার (১০ ফেব্রুয়ারি) অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।

প্রতিবারের মতো এবারও তিন প্যানেলে বিভক্ত হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হচ্ছে। প্যানেলগুলো হচ্ছে, আওয়ামীলীগ সমর্থিত সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ, বিএনপি-জামায়াতসহ সমর্থিত আইনজীবী ঐক্য পরিষদ এবং ২০০৫ সালে সমন্বয় পরিষদ থেকে বের হয়ে আসা সমমনা আইনজীবী সংসদ একটি প্যানেলের। তবে সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ ও আইনজীবী ঐক্য পরিষদ প্রতিবারের মতো পূর্ণ প্যানেলে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও সমমনা সংসদ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ছাড়া অন্য কোন পদে প্রার্থী দিতে পারেনি।

সমন্বয় পরিষদ থেকে সৈয়দ মোক্তার আহমদ সভাপতি ও আবুল হোসেন মোহাম্মদ জিয়াউদ্দিন (এএইচএম জিয়াউদ্দিন) সাধারণ সম্পাদক পদে প্রতিদ্বন্দিতা করছেন। ঐক্য পরিষদ থেকে সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ এনামুল হক সভাপতি ও মো. আবদুস সাত্তার সারোয়ার সাধারণ সম্পাদক পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। সমমনা থেকে সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. মুজিবুর রহমান চৌধুরী ফারুখ ও তৌহিদুল মুনির চৌধুরী টিপু প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। দলীয় প্যানেলের বাইরে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে সাধারণ সম্পাদক পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন মোহাম্মদ আবুল হাসান শাহাবুদ্দিন। আইনজীবী সমিতি নির্বাচনে সম্পাদকীয় ৯টি ও নির্বাহী সদস্যের ১০টি পদ রয়েছে। মোট ১৯ পদে এবার প্রার্থী হয়েছেন ৪২ জন। তম্মধ্যে সম্পাদকীয় পদে দুই স্বতন্ত্র প্রার্থীসহ ২২ জন ও নির্বাহী সদস্যপদে ২০ জন ।

ইতিমধ্যে আইনজীবী সমিতির কার্যকরী পরিষদের নির্বাচন কমিশনের প্রধান নির্বাচনী কর্মকর্তা সুভাষ চন্দ্র লালাসহ ৫ সদস্যের নির্বাচন কমিশন ৪২ প্রার্থীকে চূড়ান্ত ও বৈধ প্রার্থী ঘোষণা করে প্রার্থী পরিচিতি সভা করেছেন। সমিতি সূত্রে জানা গেছে, এবার সমিতির মোট ভোটার হয়েছেন ৪ হাজার ৫শ ৬০ জন। তবে সম্পূরক তালিকায় আরও ভোটার সংযুক্ত হতে পারে।

সমন্বয় পরিষদ
সভাপতি সৈয়দ মোক্তার আহমদ, সিনিয়র সহ-সভাপতি তুষার সিংহ হাজারী, সহ-সভাপতি আলী আশরাফ চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক আবুল হোসেন মোহাম্মদ জিয়াউদ্দিন, সহ-সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আবদুল আল মামুন, অর্থ সম্পাদক মঈনুল আলম চৌধুরী টিপু, পাঠাগার সম্পাদক মো. নজরুল ইসলাম, সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়া সম্পাদক তানজিলা মান্নান যুথী, তথ্য ও প্রযুক্তি সম্পাদক মো. ইমরুল হক মেনন।

এছাড়া সমন্বয়ের সদস্য প্রার্থীরা হলেন, কাজী শোয়াইব-উর-রশিদ সিদ্দিকী, খায়রুন নেছা, মো. রবিউল আলম, মুহাম্মদ শফিউল আজম বাবর, মোমেনুর রহমান, নাসরিন আক্তার চৌধুরী, মোহাম্মদ রহিম উদ্দীন, রূপম রায়, সঞ্জীব কুমার ধর ও স্বপ্না রানী ভৌমিক।

ঐক্য পরিষদ
সভাপতি মুহাম্মদ এনামুল হক, সিনিয়র সহ-সভাপতি শেখ মো. ছাবেদুর রহমান, সহ-সভাপতি মো. আজিজুল হক চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক মো. আবদুস সাত্তার সারোয়ার, সহ-সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ কবির হোসাইন, অর্থ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম সুমন, পাঠাগার সম্পাদক মো. আলী আকবর সানজিক, সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়া সম্পাদক রুনা কাসেম, তথ্য ও প্রযুক্তি সম্পাদক মো. সাহাদাত হোসেন।

অন্যদিকে সদস্যপদে ঐক্য পরিষদের প্রার্থীরা হলেন, এএসএম রিদুয়ানুল করিম, আবদুল সবুর, আমিন আহমেদ, মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম, মো. মেজবাহ উদ্দিন, মো. মনজুর হোসেন, মো. ওমর ফারুক, মোহাম্মদ নাজমুল ইসলাম, শেখ তাপসী তহুরা ও তানজিন আক্তার সানি।

সমমনা
সভাপতি মো. মুজিবুর রহমান চৌধুরী ফারুখ ও সাধারণ সম্পাদক তৌহিদুল মুনির চৌধুরী টিপু।

স্বতন্ত্র
সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আবুল হাসান শাহাবুদ্দিন ও পাঠাগার সম্পাদক মোহাম্মদ হাবিবউল্লাহ।

নির্বাচনকে ঘিরে প্রচার-প্রচারণা কেন্দ্রিক নির্বাচনী উত্তাপ ছড়িয়ে পড়েছে চট্টগ্রাম আদালতপাড়ায় ও সংশ্লিষ্ট সকল মহলে। প্রত্যেকটি প্যানেল মূলতঃ চেষ্টা করছে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের পদে নিজেদের প্যানেল কে জয়ী করতে। ভোটারদের বিভিন্ন ভাবে চেষ্টা করছে।

আইনজীবীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, অন্যান্য পদগুলোতে দ্বিমুখী লড়াই হলেও এবার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে ত্রিমুখী লড়াই হতে পারে।