ভূমির নামজারিতে আলাদা আবেদনের প্রয়োজন নেই

প্রতিবেদক : বার্তা কক্ষ
প্রকাশিত: ১৯ ডিসেম্বর, ২০২০ ২:০৮ অপরাহ্ণ
ভূমি মন্ত্রণালয়

এখন থেকে ভূমির নামজারির ক্ষেত্রে আবেদনপত্র পেশ করার প্রয়োজন হবে না। দলিলের কপি ও সম্পত্তি হস্তান্তর নোটিশের (এলটি নোটিশ) মাধ্যমে সরাসরি নামজারি/ই-নামজারির জন্য মিস কেস রুজু করা যাবে। ভূমি মালিকের আলাদা আবেদনের প্রয়োজন নেই।

ভূমি মন্ত্রণালয় থেকে সম্প্রতি জারি করা মাঠপর্যায়ের ভূমি অফিসের করণীয় বিষয়ক এক দিকনির্দেশনামূলক পরিপত্রে এ তথ্য উল্লেখ করা হয়েছে। এছাড়া আট দিনে নামজারি সম্পন্ন করার কাজ প্রথম পর্যায়ে সাভার উপজেলায় চালু করা হয়েছে বলেও পরিপত্রে উল্লেখ করা হয়।

নামজারি/ই-নামজারি খতিয়ানের ভিত্তিতে জমির দলিল রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন হলেও এর ভিত্তিতে মালিকানা পরিবর্তন হলে সে ক্ষেত্রে সংশ্নিষ্ট বিধান প্রযোজ্য হবে। এ ক্ষেত্রে প্রচলিত পদ্ধতি অনুসরণ করার প্রয়োজন হবে না। সংশ্নিষ্ট ইউনিয়ন/পৌর ভূমি অফিস, সার্ভেয়ার/কানুনগোর সরেজমিন তদন্তের আবশ্যকতা নেই বলেও নির্দেশনা রয়েছে পরিপত্রে।

পরিপত্রে আরও বলা হয়, জমি হস্তান্তর দলিল রেজিস্ট্রেশন করার সময় সাব-রেজিস্ট্রার তিন কপি দলিল সম্পাদন করবেন। এর মধ্যে একটি কপি দলিল গ্রহীতা পাবেন, দ্বিতীয় কপি সাব-রেজিস্ট্রি অফিস সংরক্ষণ করবে ও তৃতীয় কপি ও এলটি নোটিশের একটি পরিচ্ছন্ন কপি সংশ্নিষ্ট উপজেলা/সার্কেল ভূমি অফিসে পাঠাতে হবে।

দলিলের কপি ও এলটি নোটিশের কপি ভূমি অফিসে পৌঁছানোর পর প্রচলিত বিধান অনুযায়ী নামজারির ফি ও সার্ভিস চার্জ পরিশোধ করা ও দলিল অবিকল নকল কপিসহ উপস্থিত হয়ে শুনানি গ্রহণের জন্য সর্বোচ্চ চার কার্যদিবসের মধ্যে সময় দিয়ে দলিল গ্রহীতাকে ই-মেইল/মেসেজ দিতে হবে।

এ ছাড়া দলিলের কপি ও এলটি নোটিশ এসিল্যান্ডের কাছে পৌঁছানোর তারিখ হতে পরবর্তী আট কার্যদিবসের মধ্যে নামজারি সম্পন্ন করতে হবে।