সুপ্রিম কোর্ট বারের কাছে জ্যেষ্ঠ চার আইনজীবীর ৩ প্রশ্ন

প্রতিবেদক : ল'ইয়ার্স ক্লাব বাংলাদেশ
প্রকাশিত: ৩ মার্চ, ২০২২ ১১:৩১ পূর্বাহ্ণ
সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির কাছে জ্যেষ্ঠ চার আইনজীবীর ৩ প্রশ্ন

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির ২০২২-২৩ কার্যবর্ষের কার্যনির্বাহী কমিটির দুই দিনব্যাপী নির্বাচন ১৫ ও ১৬ মার্চ অনুষ্ঠিত হবে। কিন্তু এ নির্বাচনের আগে তিনটি প্রশ্নের জবাব চেয়ে চিঠি পাঠিয়েছেন সমিতিরই জ্যেষ্ঠ চারজন আইনজীবী।

তাঁরা হলেন- ড. কামাল হোসেন, এম আমীর-উল ইসলাম, রোকনউদ্দিন মাহমুদ ও মইনুল হোসেন। তাঁরা চারজনই সমিতির সাবেক সভাপতি।

তিনটি প্রশ্নের জবাব চেয়ে জ্যেষ্ঠ চার আইনজীবীর সই করা একটি চিঠি গত ২৮ ফেব্রুয়ারি সমিতির কার্যনির্বাহী কমিটি বরাবর পাঠানো হয়। কার্যনির্বাহী কমিটিকে দ্রুত জবাব দিতে বলা হয়েছে।

চিঠিতে বলা হয়, সমিতির সভাপতি (২০২১-২২ মেয়াদে নির্বাচিত) জ্যেষ্ঠ আইনজীবী আবদুল মতিন খসরু গত বছরের ১৪ এপ্রিল মারা যান। সভাপতি হিসেবে তাঁর মেয়াদ ছিল গত বছরের ১ এপ্রিল থেকে চলতি বছরের ৩১ মার্চ পর্যন্ত। এ অবস্থায় সমিতির সভাপতি কে? অপর দুটি প্রশ্ন হচ্ছে, অযোগ্যদের নাম কেন ২০২২-২৩ নির্বাচনে ভোটার তালিকায় এসেছে। আসছে নির্বাচনে সদস্যদের ভোট ইলেকট্রনিক্যালি গণনার ম্যানডেট (ক্ষমতা) কীভাবে এল।

চিঠিতে উল্লেখ করা হয়, কার্যনির্বাহী কমিটির কোনো সভা ছাড়া ইভিএম বা অন্য কোনো যন্ত্রের মাধ্যমে ইলেকট্রনিক্যালি ভোট গণনা দৃশ্যত সমিতির গঠনতন্ত্রের ১৫(৬) অনুচ্ছেদের সঙ্গে সাংঘর্ষিক।

এতে আরও বলা হয়, গঠনতন্ত্র ও সদস্য বিধিমালা একসঙ্গে পড়লে দেখা যায়, সমিতির সদস্যরা সাধারণত সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগে (অধস্তন আদালতে পেশা পরিচালনাকারী নয়) পেশা পরিচালনা করবেন এবং ঢাকা মহানগর এলাকায় তাঁদের শুধু একটি কার্যালয় থাকবে।
তবে বর্তমান ‘ভোটার তালিকায়’ এমন আইনজীবীদের নাম আছে উল্লেখ করে চিঠিতে বলা হয়, যাঁরা সাধারণত অধস্তন আদালতে পেশা পরিচালনা করেন, ঢাকা মহানগর এলাকার বাইরে। এর মাধ্যমে তাঁরা নিজেরাই সদস্য হওয়ার অযোগ্য, যে কারণে তাঁরা সমিতির ২০২২-২৩ নির্বাচনে ভোট দেওয়ার যোগ্য নন।

অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য যত দ্রুত সম্ভব ভোটার তালিকা সংশোধনের পাশাপাশি বিশেষ সাধারণ সভা আহ্বানের মাধ্যমে অ্যাডহক কমিটি গঠনের কথাও বলা হয়েছে চিঠিতে।