পিপলস লিজিংয়ের পরিচালনার জন্য ১০ সদস্যের বোর্ড গঠন করে দিয়েছেন হাইকোর্ট

প্রতিবেদক : বার্তা কক্ষ
প্রকাশিত: ১৩ জুলাই, ২০২১ ৫:৪১ অপরাহ্ণ
হাইকোর্ট

পি কে হালদার কাণ্ডে আলোচনায় আসা আর্থিক প্রতিষ্ঠান পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস লিমিটেডকে পুনর্গঠন বা পুনরুজ্জীবিত করে প্রতিষ্ঠানটি পরিচালনার জন্য ১০ সদস্যের একটি বোর্ড গঠন করে দিয়েছেন হাইকোর্ট।

সুপ্রিম কোর্টের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী কামাল উল আলমকে চেয়ারম্যান করে মঙ্গলবার (১৩ জুলাই) হাইকোর্টের বিচারপতি মোহাম্মদ খুরশীদ আলম সরকারের একক ভার্চুয়াল বেঞ্চ লিখিত আদেশে বোর্ড সদস্যদের এ আদেশ দেন।

আর্থিক প্রতিষ্ঠানটির পুনর্গঠিত বোর্ডে দায়িত্বপ্রাপ্ত দশ সদস্যের মধ্যে চেয়ারম্যান হিসেবে নিযুক্ত হওয়া সুপ্রিম কোর্টের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী কামাল উল আলম ছাড়া অন্যান্যরা হলেন- সরকারের সাবেক সচিব আনোয়ারুল ইসলাম শিকদার, জেলা ও দায়রা জজ (অব.) হাসান শাহেদ ফেরদৌস, পুবালী ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক আব্দুল হালিম চৌধুরী, ব্রিগেডিয়ার (অব.) কাজী তাওফিকুল ইসলাম, এফসিএ নুর-ই খোদা আব্দুল মবিন ও মাওলা মোহাম্মাদ, প্রতিষ্ঠানটির সঞ্চয়কারীদের প্রতিনিধি ডা. নাশিদ কামাল, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিন্যান্স বিভাগের চেয়ারম্যান ড. নুরুল কবির এবং আনসার ভিডিপি উন্নয়ন ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মাদ জালালুদ্দিন।

হাইকোর্টের লিখিত আদেশে বোর্ডের চেয়ারম্যানকে প্রথম সভা আহ্বান করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। একই সঙ্গে অডিট রিপোর্ট তৈরি করা, আদালতের নির্দেশনা সমূহ বোর্ড সদস্যদের সামনে তুলে ধরতে এবং সকলের কার্যাবলী নির্ধারণ করতে বলা হয়েছে। এছাড়াও বোর্ড সদস্য ও আমানতকারীদের বিষয়ে পৃথক পৃথক নির্দেশনা দিয়েছেন আদালত।

এর আগে গত ২৮ জুন পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস লিমিটেডকে পুনর্গঠন বা পুনরুজ্জীবিত করে প্রতিষ্ঠানটি পরিচালনার জন্য একটি বোর্ড গঠন করে দেন হাইকোর্ট। তবে আদেশের লিখিত অনুলিপিতে বোর্ড সদস্যদের বিস্তারিত তথ্য থাকবে বলে জানিয়েছিল আদালত। প্রতিষ্ঠানটির ২০১ আমানতকারীর বক্তব্যের ওপর শুনানি শেষে বিচারপতি মোহাম্মদ খুরশীদ আলম সরকারের একক ভার্চুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

সেই আদেশের ধারাবাহিকতায় বিচারপতির স্বাক্ষরের পর লিখিত অনুলিপিতে প্রতিষ্ঠানটির পুনর্গঠিত বোর্ড সদস্যদের তালিকা প্রকাশ করলেন আদালত।

গত ২১ জুন প্রতিষ্ঠানটির পুনর্গঠন বা পুনরুজ্জীবিত করার নির্দেশনা চেয়ে ২০১ জন আমানতকারী হাইকোর্টে আবেদন জানিয়েছিলেন। সে আবেদনের শুনানি নিয়ে আদেশ দেন হাইকোর্ট। আদালতে আমানতকারীদের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার আহসানুল করিম। বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী ব্যারিস্টার তানজীব-উল আলম। পিএলএফএসএলের সাময়িক অবসায়ক (প্রবেশনাল লিক্যুইডেটর) মো. আসাদুজ্জামানের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন আইনজীবী মেজবাহুর রহমান।

১৯৯৭ সালের ২৪ নভেম্বর আর্থিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে পিপলস লিজিংকে অনুমোদন দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক। আর ২০১৯ সালের জুলাইয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে পিপলস লিজিংকে অবসায়নের পক্ষে সম্মতি দেয় সরকার।

এরপর আদালতের নির্দেশে বাংলাদেশ ব্যাংকের উপ-মহাব্যবস্থাপক মোহাম্মদ আসাদুজ্জামানকে অবসায়ক হিসেবে দায়িত্ব দেয়া হয়। অবসায়ক নিয়োগের পর এখন পর্যন্ত মাত্র ৪০ কোটি আদায় হয়েছে। তবে এখনই আমানতকারীরা কোনো টাকা ফেরত পাচ্ছেন না।