৯ পরীক্ষার্থীর বহিষ্কার : ১০ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ চেয়ে নোটিশ

প্রতিবেদক : ল'ইয়ার্স ক্লাব বাংলাদেশ
প্রকাশিত: ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ১০:৪৩ পূর্বাহ্ণ
আইনি নোটিশ

পটুয়াখালীর গলাচিপা উপজেলার খারিজ্জমা ইসহাক মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ৯ এসএসসি পরীক্ষার্থীকে অস্বাভাবিক বহিষ্কারের ঘটনায় লিগ্যাল নোটিশ দেওয়া হয়েছে।

ল’ এন্ড লাইফ ফাউন্ডেশন ট্রাস্ট এর পক্ষে শনিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) সুপ্রিম কোর্টের তিন আইনজীবী ব্যারিস্টার মোহাম্মদ হুমায়ন কবির, অ্যাডভোকেট মো. রোকনুজ্জামান ও নাইম সরদার এ নোটিশ পাঠিয়েছেন।

নোটিশে পটুয়াখালী জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার (ম্যাজিস্ট্রেট) মো. ইসমাইল রহমানের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ, ৯ শিক্ষার্থীর বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার, প্রত্যেককে ১০ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দিতে বলা হয়েছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সচিব, পটুয়াখালী জেলা প্রশাসক, পটুয়াখালী জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার মো. ইসমাইল রহমান, খারিজ্জমা ইসহাক মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের কেন্দ্র সচিব নুসরাত জাহানকে ইমেইলে এ নোটিশ পাঠানো হয়েছে।

ব্যারিস্টার মোহাম্মদ হুমায়ন কবির বলেন, পটুয়াখালীর গলাচিপা উপজেলার খারিজ্জমা ইসহাক মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের ৯ এসএসসি পরীক্ষার্থীকে গত বৃহস্পতিবার পরীক্ষা শুরু হওয়ার মাত্র ৫ মিনিটের মধ্যে ম্যাজিস্ট্রেট মো. ইসমাইল রহমান যথাযথ কোনো কারণ ছাড়াই এক বছরের জন্য বহিষ্কার করেন। ফলে ওই ৯ শিক্ষার্থী এবং তাদের পরিবারে গভীর হতাশা নেমে এসেছে। শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। এ বিষয়ে বিভিন্ন দৈনিক পত্রিকায় প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। এক প্রতিবেদনে দেখা যায়, সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসককে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করা হলে তিনি বহিষ্কারাদেশ পরিবর্তন করবেন না বলে সাফ জানিয়ে দেন।

ব্যারিস্টার হুমায়ন বলেন, কোমলমতি শিক্ষার্থীদের এভাবে বহিষ্কার করায় শিক্ষার্থী ও তাদের পরিবার যেমনি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, তেমনি ঘটনাটি দেশের প্রত্যেক বিবেকবান ব্যক্তিকে আলোড়িত করেছে। ঘটনায় দৃষ্টি দিলে প্রতীয়মান হয় যে, সংশ্লিষ্ট সহকারী কমিশনার ক্ষমতার অপব্যবহার করে নিপীড়নমূলক, বেআইনি এবং অযাচিত ও ষড়যন্ত্রমূলকভাবে ৯ শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করেছেন, যা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়।

নোটিশে নয়জন শিক্ষার্থীর বহিষ্কারাদেশ অবিলম্বে প্রত্যাহারপূর্বক পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ দান, প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে ১০ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ প্রদান এবং ক্ষমতার অপব্যবহারের জন্য সহকারী কমিশনার মো. ইসমাইল রহমানের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ করা হয়েছে। আগামী ১২ ঘণ্টার মধ্যে (শনিবার সন্ধ্যার পর থেকে) এসব ব্যবস্থা না নিলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে নোটিশে উল্লেখ করা হয়েছে।